এমপিও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক ও অস্থায়ী শিক্ষকদের মানবেতর জীবনযাপন

প্রকাশিত: ৭:৪৫ অপরাহ্ণ, জুন ২৯, ২০২০

করোনা পরিস্থিতিতে বেঁচে থাকার লড়াই এ দেশি তিতা করলার স্বাদ পাচ্ছেন ননএমপিও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক ও বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নিযুক্ত অস্থায়ী শিক্ষকবৃন্দ ।ননএমপিও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এবং বিভিন্ন সরকারি ও এমপিও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান অস্থায়ী শিক্ষকদের বেতন অতি নগন্য।
করোনা পরিস্থিতিতে বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠানের সেই অল্প বেতনটাই আটকে আছে। ননএমপিও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে সামান্য কিছু টিউশন ফি আদায় করত তাই দিয়েই শিক্ষকদের সামান্য বেতন হতো। আবার কোন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে কোনো টিউশন ফি আদায় হতো না।
এ সকল শিক্ষকরা শিক্ষার্থীদের প্রাইভেট পড়ানোর উপর তাদের সংসার চালাত। মহামারী করোনা ভাইরাসের কারণে চার মাস ধরে শিক্ষার্থীদের প্রাইভেট পড়ানো বন্ধ এর ফলে তাদের অর্থ উপার্জনের সেই রাস্তাটাও বন্ধ হয়ে গেছে।এমতাবস্থায় তাদের কেউ অন্যের জমিতে দিনমজুরের কাজ করছেন, কেউ মৌসুমী ফল বিক্রেতা, কেউ তরকারি বিক্রেতা, কেউবা আবার অটোরিকশা চালাচ্ছেন।তাই সরকারের পাশাপাশি ঐ সকল প্রতিষ্ঠানের কর্তৃপক্ষ,বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতি একটু আর্থিক সহযোগিতা করলে তারা বেঁচে থাকার অবলম্বন খুঁজে পাবে না হলে সময়ের কাল স্রোতে হারিয়ে যাবে।