মোবাইল ব্যাংকিং এর মাধ্যমে এমপিও ভুক্ত শিক্ষক-কর্মচারীদের বেতন প্রদান বন্ধে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সুদৃষ্টি আকর্ষণ

প্রকাশিত: ২:১২ পূর্বাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১, ২০২০

মোঃ নজরুল ইসলাম,নরসিংদী।। 

হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙ্গালী স্বাধীন বাংলাদেশের মহান স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সুযোগ্য কন্যা মানবতার মা আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা আপনার প্রতি হাজারো সালাম। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় এদেশের একটি কুচক্রী মহল স্বাধীনতার বিরোধীতা করছিল কিন্তু জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু তাদের চক্রান্তকে সফল হতে দেয়নি। দেশের মানুষকে ভালবেসে জনগণের অধিকার প্রতিষ্ঠা করতে নিজের জীবন বাজি রেখে স্বাধীন বাংলাদেশের জন্ম দেন। দেশে এখনো কিছু কুচক্রী মহল রয়েছে যারা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার সুনাম, দেশের উন্নয়ন, শিক্ষা ব্যবস্হার উন্নয়ন, দেশ ও জাতি গঠনের মহান কারিগরদের মর্যাদা ক্ষুন্ন করার জন্য অগোচরে লিপ্ত রয়েছে। দেশের ৯৭% শিক্ষার দায়িত্বে নিয়োজিত ও কর্তব্যরত এমপিও ভুক্ত বেসরকারি শিক্ষক সমাজ মনে করছে মোবাইল        ব্যাংকিং এর মাধ্যমে এমপিও ভুক্ত বেসরকারি শিক্ষক কর্মচারীদের বেতন-ভাতা প্রদানের জন্য যারা  চিন্তা করছেন তাদের চিন্তা চেতনার অদূরদর্শীতা বেসরকারি শিক্ষকদের সামাজিক ও রাষ্ট্রীয় মর্যাদা ক্ষুন্ন করবে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আপনার সদয় অবগতির জন্য মোবাইল ব্যাংকিং কার্যক্রমের মাধ্যমে বেতন-ভাতা প্রদানের কিছু সমস্যা তুলে ধরছিঃ ১। সরকারি অর্থের অতিরিক্ত ব্যয়( মোবাইল কোম্পানির সাথে চুক্তির জন্য)  । 

২। শিক্ষক কর্মচারীদের নিজের, পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের গুরুতর অসুস্থতা ও জরুরী কাজে ব্যাংক থেকে যে পার্সোনাল লোন গ্রহণ করে সে সুবিধা থেকে বঞ্চিত হবে।
৩। মোবাইল একাউন্ট থেকে টাকা তুলতে প্রতি হাজারে ১৮/২০ টাকা খরচ দিতে হবে।
৪। পাসওয়ার্ড ভুলে গেলে টাকা তুলতে বিড়ম্বনার শিকার হবে। মোবাইলে টাকা থাকলে মোবাইল ছিন তায় ও প্রাণ নাশের আশংকা রয়েছ।
৫। বাজারের দোকানে অল্প শিক্ষিত দোকানদারের সামনে রাস্তায় লাইন ধরে দাঁড়িয়ে থাকার বিড়ম্বনা যা খুবই লজ্জাজনক ব্যাপার। আরও অনেক সমস্যা।
পৃথিবীর অন্যান্য দেশের কথা বাদই দিলাম।  আমাদের পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতে শিক্ষকদের মর্যাদা খুবই প্রশংসনীয়। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আমরা দেখেছি সারা পৃথিবীর মানুষ অবাক হয়ে দেখেছে আপনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আপনার মহান শিক্ষা গুরুর প্রতি আপনি যে সম্মান প্রদর্শন করেছেন। শিক্ষকের প্রতি আপনার ভালবাসা ও শ্রদ্ধা ইতিহাসের পাতায় অম্লান হয়ে থাকবে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আপনি আমাদের অভিভাবক ও শেষ আশ্রয়স্হল। আপনি আমাদের ডিজিটাল বাংলাদেশের রুপকার। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শিক্ষককর্মচারীদের মর্যাদা রক্ষার্থে এমপিও ভুক্ত বেসরকারি শিক্ষক কর্মচারীদের পূর্ববর্তী মাসের বেতন-ভাতা পরবর্তী মাসের ১ থেকে ৩ তারিখের মধ্যে ডিজিটাল পদ্ধতিতে( ই এফটি) শিক্ষক কর্মচারীদের ব্যাংক একাউন্টে সরাসরি পাঠানোর প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করার জন্য সবিনয় অনুরোধ করছি। জয় বাংলা।
মোঃ নজরুল ইসলাম
সহসভাপতি,  বাংলাদেশ শিক্ষক কর্মচারী ফোরাম, নরসিংদী জেলা ও
প্রধান শিক্ষক
রামনগর হাই স্কুল
রায়পুরাা, নরসিংদী।

Categories