“৩৩ বছর ফেল, অবশেষে সেই সোনার হরিণ এসে ধরা দিলো তাও করোনার কারণে”

প্রকাশিত: ৩:৪১ অপরাহ্ণ, আগস্ট ২, ২০২০

৩৩ বছর ফেল, অবশেষে সেই অধরা স্বপ্ন সোনার হরিণ এসে ধরা দিলো তাও করোনার কারণে।

পল্লী কবি জসিম উদ্দিনের কবর কবিতায় ৩০ বছরের সাধনার কথা নাতির কাছে ব্যাখ্যা করা হয়েছে। আর মোহাম্মদ নুরুদ্দিন নামক এক ভদ্রলোকের ৩৩ বছরের সাধনার কথা এবার শুনি।

হ্যা, মোহাম্মদ নুরুদ্দিন নামক এই ভদ্রলোক দীর্ঘ ৩৩ বছর ধরে মাধ্যমিক পরীক্ষা দিয়ে আসছিলেন। কিন্তু কোনো বছরই পাস করতে পারছিলেন না। মনে মনে প্রতিজ্ঞা করেছিলেন, পাস না হওয়া পর্যন্ত পরীক্ষা দিতেই থাকবেন, দিতেই থাকবেন। অবশেষে সেই অধরা স্বপ্ন সোনার হরিণ এসে ধরা দিলো ভারতের হায়দ্রাবাদের ওই বাসিন্দার হাতে।

ভারতের বার্তা সংস্থা এএনআইর বরাত দিয়ে জিনিউজের খবরে বলা হয়, ১৯৮৭ সাল থেকে মাধ্যমিক পরীক্ষা দিয়ে আসছিলেন হায়দ্রাবাদের বাসিন্দা মোহাম্মদ নুরুদ্দিন। ইংরেজিতে কাঁচা হওয়ায় এ বিষয়ে দীর্ঘদিন ধরে তিনি ফেল করে আসছেন। অবশেষে করোনাভাইরাসের উসিলায় এ বছর পাস করে ফেললেন।

এ বিষয়ে মোহাম্মদ নুরুদ্দিন বলেন, ১৯৮৭ সালে প্রথমবার মাধ্যমিক পরীক্ষা দেই। কিন্তু ইংরেজিতে খুব কাঁচা হওয়ায় ফেল করি। এরপর থেকে প্রতি বছরই পরীক্ষা দিয়ে যাচ্ছি। কিন্তু কোনো বছরই পাস করতে পারছিলাম না। এ নিয়ে অনেকে অনেক কথা বলতো। তাই মনে মনে প্রতিজ্ঞা করেছিলাম পাস করেই ছাড়বো। যেন লোকে আর মাধ্যমিক ফেল বলতে না পারে।

অবশেষে এ বছর করোনাভাইরাস এসে পাস করিয়ে দিলো। আসলে সরকার এ বছর মাধ্যমিক পরীক্ষায় ছাড় দিয়েছে। সরকার ঘোষণা দিয়েছিল, এ বছর সবাইকে পাস করিয়ে দেয়া হবে। সেই সুযোগে আমিও পাস করে গেলাম, যোগ করেন ৫১ বছর বয়সী এই ব্যক্তি।


Categories