১মবারের মতো পাকিস্তানের মাটিতে ওয়ানডে সিরিজ নিউজিল্যান্ডের।

প্রকাশিত: ১২:৩৯ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ১৪, ২০২৩

১মবারের মতো পাকিস্তানের মাটিতে ওয়ানডে সিরিজ নিউজিল্যান্ডের।

প্রথমবারের মতো পাকিস্তানের মাটিতে ওয়ানডে সিরিজ জিতল নিউজিল্যান্ড। রোমাঞ্চকর একটা লড়াই উপহার দিলো পাকিস্তান ও নিউজিল্যান্ড। উত্তেজনার রেণু ছড়ানো ম্যাচে শেষ হাসি হাসল নিউজিল্যান্ড।

শুক্রবার রাতে করাচিতে টস জিতে আগে ব্যাটিংয়ে নেমে নির্ধারিত ওভারে আট উইকেটে ২৮০ রানের শক্তিশালী সংগ্রহ তোলে স্বাগতিক পাকিস্তান। জবাব দিতে নেমে আট উইকেট হারিয়ে ১১ বল বাকি থাকতে থ্রিলার জয় তুলে নিয়েছে নিউজিল্যান্ড। দুই উইকেটের এই জয়ে তিন ম্যাচের সিরিজ ২-১ ব্যবধানে জিতে নিল সফরকারী দল নিউজিল্যান্ড।

ওপেনার বাবর আজম ও মোহাম্মদ রিজওয়ান পাকিস্তানের বড় সংগ্রহের ভিত গড়ে দিয়েছেন। ২১ রানে দুই উইকেট পতনের পর ইনিংসের হাল ধরেন এই যুগল। ১৫৪ রানের জুটি বিচ্ছিন্ন হয় রিজওয়ানের বিদায়ে। শতকের সম্ভাবনা জাগিয়ে ৭৪ বলে ৭৭ রানে সাঝঘরে ফিরে যান তিনি।

ফখর রিজওয়ানের ভুলটা করেননি। নিজের অষ্টম সেঞ্চুরি তুলে নেন এই ওপেনার। ১২২ বলে ১০১ রানে আউট হন ফখর। একদিনের ক্রিকেটে পাকিস্তানের হয়ে এটা তার অষ্টম সেঞ্চুরি। এ ছাড়া হ্যারিস সোহেল ২৫ বলে ২২ এবং আগা সালমান ৪৩ বলে ৪৫ রান করেছেন। নিউজিল্যান্ডের পক্ষে টিম সাউদি তিনটি এবং লোকি ফার্গুসন দুইটি  উইকেট নিয়েছেন।

অবশ্য রান তাড়ায় শুরুটা খারাপ হয়নি নিউজিল্যান্ডেরও । নবম ওভারে বিনা উইকেটে ৪৩ রান যোগ করে তারা। ওই ওভারেই বিদায় নেন ফিন এলেন। ২৫ বলে ২৫ রান করেন তিনি। এরপর রানের চাকা সচল রেখে ব্যক্তিগত ফিফটি তুলে নেন ডেভন কনওয়ে ও অধিনায়ক উইলিয়ামসন।

৬৫ বলে কনওয়ে ৫২ এবং ৬৮ বলে উইলিয়ামসন করেন ৫৩ রান। এই দুজনের ফাঁকে ডারিল মিচেলকে সাঝঘরে পাঠায় পাকিস্তান। ৩৬ বলে ৩১ রানে আউট হন মিচেল। এরপর দলের রান দুশো পার হতেই ষষ্ঠ উইকেট হারায় নিউজিল্যান্ড। ২২ বলে ১৬ রানে বিদায় নেন মাইকেল ব্রেসওয়েল। জমে ওঠে ম্যাচ।

একদিকে উইকেটে রাশ টেনে ধরার চ্যালেঞ্জ অন্যদিকে আস্কিং রেটের চাপ। দুটো চাপ দারুণভাবে সামলে নেন গ্লেন ফিলিপস। লড়াই করলেন লোয়ার অর্ডারের ব্যাটারদের নিয়ে। পাশাপাশি ব্যাট হাতে ঝড় তোলেন তিনি। শেষ পর্যন্ত দলকে জিতিয়ে ইতিহাস গড়েই মাঠ ছাড়েন ফিলিপস। ৪২ বলে চারটি করে চার-ছক্কায় ৬৩ রানের ঝোড়ো ইনিংসে অপরাজিত থাকেন তিনি। প্রায় হারতে বসা ম্যাচে দলকে জিতিয়ে প্রত্যাশিতভাবেই ম্যাচ সেরা হয়েছেন ফিলিপস। সিরিজ সেরা হন কনওয়ে। ১৭ বলে মিচেল স্যান্টনার ১৫ বলের ইনিংস খেললেও ম্যাচের পরিস্থিতি বিবেচনায় যা ছিল মহামূল্যবান। সিরিজ সেরার লড়াইয়ে ছিলেন তিনিও।

পাকিস্তানের বোলারদের মধ্যে সবচেয়ে সফল ওয়াসিম জাফর জুনিয়র ও সালমান ২টি করে উইকেট নিয়েছেন। কিন্তু অন্যান্যদের অনিয়ন্ত্রিত বোলিং এর মাসুল দিতে হলো পাকিস্তানকে। প্রথমবারের মতো ঘরের মাঠে ওয়ানডে সিরিজে তারা হারল নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে।


Categories