হাঁটা : একটি চমৎকার ব্যায়ামের নাম।      

প্রকাশিত: ৮:৩২ অপরাহ্ণ, জুলাই ৪, ২০২০

 

বলা হয়ে থাকে,Walking is the best medicine.প্রতিদিন হাঁটা আপনাকে যেমন  সুস্থ ও সতেজ রাখে তেমনি কর্মশক্তিও বাড়িয়ে দেয়। শারীরিক সুস্থতার সঙ্গে সঙ্গে মানসিকভাবেও ভালো থাকার চমৎকার উপায় হলো হাঁটা।

যারা নিয়মিত হাঁটেন,তাদের হৃৎপিণ্ড সুস্থ থাকে। কারণ, হাঁটার ফলে হৎপিণ্ড ও ফুসফুসের কর্মক্ষমতা বাড়ে। আর  উচ্চ রক্তচাপ, ডায়াবেটিস ও স্ট্রোকের মতো জীবনঘাতী রোগগুলো প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণে নিয়মিত হাঁটার ভূমিকা এখন একাধিক গবেষণায় প্রমাণিত।

হাঁটার উপকারিতাগুলো :

১।হৃৎপিণ্ড সুস্থ রাখে।

২।রক্তে কোলেস্টেরল-মাত্রা নিয়ন্ত্রন করে।

৩। ওজন নিয়ন্ত্রণ রাখে।

৪। হাঁটার ফলে দেহের পেশীগুলোও প্রাণবন্ত হয়ে উঠে।

৫। হাঁটা ন্যাচারাল বাইপাস। করোনারি হৃদরোগ নিরাময়ে বিনা অর্থ ব্যয়ে চমৎকারভাবে লাভ করতে পারেন নিয়মিত ৩০ মিনিট থেকে এক ঘণ্টা হাঁটা এবং ব্যায়ামের মধ্য দিয়ে।

৬। উচ্চ রক্তচাপ, ডায়াবেটিস ও স্ট্রোকের ঝুঁকি কমায়।

৭। যাদের ডায়াবেটিস আছে সপ্তাহে অন্তত চার/পাঁচ দিন জোরে হাঁটুন। বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরা বলছেন, হাঁটা ডায়াবেটিস রোগীর জন্য বেশি কার্যকর।

৮। ক্যান্সারের ঝুঁকি হ্রাস করে।

৯। নিয়মিত হাঁটার ফলে মস্তিষ্কের রক্তনালী ও নিউরোনগুলোতে রক্তপ্রবাহ বাড়ে যা স্মৃতি শক্তি বাড়ায় ।মস্তিষ্কের সব নিউরোন, সিন্যাপ্স কর্মচঞ্চল হয়ে ওঠে। মস্তিষ্ক হয়ে ওঠে অধিকতর সক্রিয় ও প্রাণবন্ত।

১০। হাঁটা বিষন্নতা প্রতিরোধ ও নিরাময় করে।

দেহ-মনের সুস্থতার জন্যে জোর কদমে হাঁটা উচিত। দিনে অন্তত ৩০ মিনিট। এভাবে না পারলে ধীরে হাঁটুন এবং দিনে ১৫/২০ মিনিট করে শুরু করুন। প্রতিদিনই একটু একটু করে হাঁটার গতি ও সময় বাড়ান।

তথ্য সুত্র : ইন্টারনেট ও বিভিন্ন জার্নাল।

 


Categories