সিলেট-৩ আসনে হাবিবুর রহমান হাবিব বিপুল ভোটে এমপি নির্বাচিত

প্রকাশিত: ১১:১০ পূর্বাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ৫, ২০২১

 

সিলেট-৩ (দক্ষিণ সুরমা,ফেঞ্চুগঞ্জ,বালাগঞ্জ) আসনের উপনির্বাচনে বিপুল ভোটে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী হাবিবুর রহমান হাবিব নৌকা মার্কা নিয়ে ৯০ হাজার ৬৪ টি ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তিনি নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী জাতীয় পার্টির আলহাজ্ব আতিকুর রহমান আতিককে ৬৫ হাজার ৩১২ টি ভোটের ব্যবধানে হারিয়েছেন।

 

গত ১১ মার্চ মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরী কয়েস এমপি করোনায় মারা গেলে সিলেট-৩ আসন শূন্য ঘোষণা করে নির্বাচন কমিশন। উচ্চ আদালতের নির্দেশে নির্বাচন পেছানোর পর শনিবার ভোটের চূড়ান্ত দিন নির্ধারণ করে নির্বাচন কমিশন। গত ২৯ এপ্রিল প্রজ্ঞাপনের মাধ্যমে ভোটের তারিখ ঘোষণার করা হয়। প্রথমে ৮ জুন ভোটের তারিখ নির্ধারণ করলেও করোনার জন্য তা হয়নি। এরপর ১৪ ও ২৮ জুলাই ভোটের দিন চূড়ান্ত হলেও উপনির্বাচন হয়নি।

 

আজ ৪ সেপ্টেম্বর শনিবার অবশেষে শুন্য হয়ে যাওয়া সিলেট-৩ আসনের উপ-নির্বাচনের ভোটগ্রহণ সকাল ৮ ঘটিকা থেকে বিকাল ৪ ঘটিকা পর্যন্ত ১৪৯টি কেন্দ্রের সবকটিতে ইলেক্ট্রনিক্স ডিভাইস মেশিন (ইভিএম) পদ্ধতিতে ভোটগ্রহণ হয়েছে। শান্তিপূর্ণ পরিবেশে ভোটগ্রহণ হলেও ভোটার উপস্থিতি ছিলো একেবারেই সামান্য। বেশিরভাগ কেন্দ্রে গিয়েই ভোটার দেখা যায়নি।তবে ছোটখাটো কিছু অভিযোগ ছাড়া কোনো প্রার্থীদের পক্ষ থেকেই নির্বাচন নিয়ে বড় ধরণের কোনো অভিযোগ পাওয়া যায়নি। এবারই প্রথম সিলেটের এই আসনে সব কেন্দ্রে ইভিএমে ভোট হয়। ভিড় না থাকায় ও মেশিনে ভোট হওয়ায় কম সময়েই ভোট দিয়ে বাড়ি ফিরতে পারছেন বলে সন্তুষ্টি প্রকাশ করেছেন ভোটাররা।

 

সিলেট-৩ আসনের ১৪৯ কেন্দ্রে ভোট পড়ে এক লাখ ২০ হাজার ৫৯১টি। এ আসনে মোট ভোটার তিন লাখ ৪৯ হাজার ৮৭৩। পুরুষ ভোটার এক লাখ ৭৭ হাজার ৩৯০ এবং নারী ভোট রয়েছে এক লাখ ৭২ হাজার ৪৮৩। প্রদত্ত ভোটের হার প্রায় ৩৪.৪৬ শতাংশ।

 

সিলেট-৩ আসনে (ফেঞ্চুগঞ্জ, দক্ষিণ সুরমা ও বালাগঞ্জ) নির্বাচনে হাবিব-আতিক ছাড়াও প্রার্থী ছিলেন স্বতন্ত্র প্রার্থী (বিএনপি থেকে বহিষ্কৃত) শফি আহমদ চৌধুরী (মোটরগাড়ি প্রতীক) এবং বাংলাদেশ কংগ্রেসের প্রার্থী যুক্তরাজ্য প্রবাসী জুনায়েদ মোহাম্মদ মিয়া (ডাব প্রতীক)।

 

শনিবার রাত পৌনে নয়টায় সিলেট জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কেন্দ্রে সিলেট জেলা প্রশাসক ও রিটার্নিং অফিসার কাজী এমদাদুল ইসলাম প্রাথমিক বেসরকারি ফলাফলে সিলেট-৩ আসনের উপনির্বাচনে সংসদ সদস্য হিসেবে হাবিবুর রহমান হাবিবকে বিজয়ী ঘোষণা করেন।

 

বিজয়ের পর শনিবার রাতে রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয়ে তাৎক্ষনিক প্রতিক্রিয়ায় হাবিবুর রহমান হাবিব ভোটারদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে জনগনের আশ্বাসের প্রতিদান দেওয়ার কথা বলেন। আর পরাজয় মেনে নিয়ে আতিকুর রহমান আতিক বিজয়ী প্রার্থী হাবিবকে অভিনন্দন জানিয়েছেন।

 

সিলেটের জেলা প্রশাসক ও রিটার্নিং কর্মকর্তা কাজী এমদাদুল ইসলাম জানিয়েছেন ৩০ থেকে ৪০ শতাংশ ভোট প্রয়োগ হয়েছে। ভোটার উপস্থিতি কম হওয়া প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘আমরা অনুকূল পরিবেশ তৈরি করেছি। কোথাও কোনো গোলযোগ হয়নি। শান্তিপূর্ণ ভোট হয়েছে। তারপরও কেন মানুষ ভোটে আসেননি তা বলতে পারব না।’

এদিকে সকালে কেন্দ্রে গিয়ে নিজের ভোটই দিতে পারেননি জাতীয় পার্টির প্রার্থী আতিকুর রহমান আতিক। ইভিএমে জটিলতার কারণে ভোট দিতে পারেননি তিনি। দক্ষিণ সুরমার মোগলাবাজার এলাকার রেবতি রমণ সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে সকাল ১০টার দিকে তিনি ভোট দিতে যান। বুথ থেকে বের হয়ে সাংবাদিকদের তিনি বলেন, ‘আমি আমার ভোট দিতে পারিনি। নির্বাচন কর্মকর্তারা বললেন, ইভিএমে আমার নাম ও ভোটার নম্বর খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না।’ পরে দুপুর ৩টা ৫০ মিনিটে রেবতি রমণ সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে গিয়ে ভোট দেন আতিক। ইভিএমের এই ত্রুটির বিষয়ে রিটার্নিং কর্মকর্তা এমদাদুল হক বলেন, ‘ওই প্রার্থী হবিগঞ্জের ভোটার ছিলেন। সম্প্রতি তিনি হবিগঞ্জ থেকে এখানে ভোট নিয়ে এসেছেন। তফসিল ঘোষণা হয়ে যাওয়ায় তার ভোটটি এখানকার তালিকায় আপডেট হয়নি। তবে, সকালের ঘটনার পরই আমি নির্বাচন কমিশনে কথা বলেছি। দ্রুত তার ভোটার নাম্বার এখানে আপডেট করা হয়েছে।

 

অপরদিকে শফি আহমদ চৌধুরী ও জুনায়েদ মোহাম্মদ মিয়া জামানাত হারান। প্রদত্ত ভোটের এক অষ্টমাংশ না পাওয়ায় নির্বাচন কমিশনের আইন অনুযায়ী তাদের দু’জনের জামানত বাজেয়াপ্ত হয়। শফি আহম’দ চৌধুরী প্রদত্ত ভোটের ৪.২৫ শতাংশ ও জুনায়েদ মোহাম্ম’দ মিয়া মাত্র ০.৫৩ শতাংশ ভোট পেয়েছেন।

 

সিলেট-৩ সংসদীয় আসনের ভোটের ফলাফলঃ-

হাবিবুর রহমান হাবিব–আওয়ামী লীগ

(নৌকা প্রতীক) ৯০,০৬৪টি

আতিকুর রহমান আতিক–জাতীয় পার্টি

(লাঙ্গল প্রতীক) ২৪,৭৫২টি

শফি আহমদ চৌধুরী– স্বতন্ত্র (বিএনপি থেকে বহিস্কৃত)

(মটর গাড়ি প্রতীক) ৫১৩৫টি

জুনায়েদ মোহাম্মদ মিয়া– বাংলাদেশ কংগ্রেস

(ডাব প্রতীক) ৬৪০টি


Categories