সিনহা হত্যা: পুলিশের চার সদস্য ফের চার দিনের রিমান্ডে, তদন্ত প্রতিবেদন ৭ সেপ্টেম্বর।

প্রকাশিত: ১২:৩৪ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ৬, ২০২০
আবদুল মান্নান, কক্সবাজার।
অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মো. রাশেদ খান হত্যা মামলায় পুলিশের চার সদস্যকে দ্বিতীয় দফায় চার দিনের রিমান্ডে নেওয়া হয়েছে। রিমান্ডে নেওয়া পুলিশ আসামিরা হলেন;- এএসআই লিটন মিয়া, কনস্টেবল সাফানুর করিম, কামাল হোসেন ও আবদুল্লাহ আল মামুন।
রবিবার (৬ সেপ্টেম্বর) সকাল ১১ টার দিকে কক্সবাজার জেলা কারাগার থেকে তাদের জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নিয়েছে র‌্যাব। বিষয় টি নিশ্চিত করেন জেলা কারাগারের সুপার মুহাম্মদ মোকাম্মেল হোসেন।
মামলার তদন্ত সংস্থা র‌্যাবের সিনিয়র এএসপি খাইরুল ইসলাম জানান, এই চার পুলিশ সদস্যদের অধিকতর জিজ্ঞাসাবাদের জন্য দ্বিতীয় দফায় ২৪ আগস্ট রিমান্ডের আবেদন করা হয়। আদালত চারদিন রিমান্ড মঞ্জুর করেন। সেই আলোকে তাদেরকে রিমান্ডে নেওয়া হল।
ইতিপূর্বে পুলিশের অপর তিন সদস্য বরখাস্ত ওসি প্রদীপ, পরিদর্শক লিয়াকত আলী ও এসআই নন্দদুলাল রক্ষিত কে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। লিয়াকত আলীও নন্দদুলাল আদালতে ফৌজদারি কার্যবিধির ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিলেও প্রদীপ জবানবন্দি দেননি।এপিবিএন এর তিন সদস্য সহ এ পর্যন্ত আটজন স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। বর্তমানে তারা সবাই কারাগারে বন্দি আছেন।
অপরদিকে অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মো. রাশেদ খান হত্যার ঘটনা তদন্তে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের গঠিত কমিটি আগামী ৭ সেপ্টেম্বর  স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে ৮০ পৃষ্ঠার প্রতিবেদন জমা দেয়ার কথা জানিয়েছেন তদন্ত কমিটির প্রধান চট্টগ্রাম বিভাগের অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার (উন্নয়ন) মোহাম্মদ মিজানুর রহমান।
উল্লেখ্য, গত ৩১ জুলাই কোরবানির রাতে টেকনাফ উপজেলার বাহারছড়া শামলাপুর এপিবিএন চেকপোস্টে ইন্সপেক্টর লিয়াকত আলীর গুলিতে নিহত হন সাবেক সেনা কর্মকর্তা সিনহা মো. রাশেদ খান।
এ ঘটনায় সেনাবাহিনী ও পুলিশ বাহিনীর মধ্যে উত্তেজনা সৃষ্টি হলে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে একটি উচ্চপর্যায়ের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। ৫ আগস্ট ওসি প্রদীপ ও দায়িত্বরত পরিদর্শক লিয়াকত আলীসহ নয়জন পুলিশ কে আসামি করে সিনহার বোন শারমিন শাহরিয়ার ফেরদৌস কক্সবাজার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। এ মামলায় ৭ পুলিশ সদস্যকেই বরখাস্ত করা হয়। আদালতের নির্দেশে মামলাটি তদন্ত করছে এলিট ফোর্স কক্সবাজার র‌্যাব-১৫।

 


Categories