“শ্লীলতা  হানির অপমান সইতে না পেরে ৮ম শ্রেণীর ছাত্রীর আত্নহত্যা! দুই আসামি পলাতক “

প্রকাশিত: ১০:৩৬ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ৫, ২০২০
অহিদুল ইসলাম-স্টাফ রিপোর্টারঃ

শ্লীলতাহানির অপমান সইতে না পেরে ৮ম শ্রেণীর ছাত্রীর আত্নহত্যা! দুই আসামি পলাতক। 

নওগাঁয় বখাটেদের অত্যাচার সইতে না পেরে গলায় ফাঁস দিয়ে সিফাত সুলতানা ওরফে স্বর্ণা (১৫) নামে এক স্কুল ছাত্রী আত্মহত্যা করেছে। ঘটনাটি ঘটেছে নওগাঁ শহরের খাস-নওগাঁ এলাকায় গতকাল শুক্রবার রাতে। সে নওগাঁ পিএম বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ৮ম শ্রেণীর ছাত্রী।
এ ঘটনায় আজ শনিবার (৫ সেপ্টেম্বর) বিকেলে শ্লীলতাহানির চেষ্টা ও আত্মহত্যার প্ররোচণার অভিযোগে ওই কিশোরীর বাবা বাদী হয়ে রিহান ইসলাম (২৩) ও সৌরভ (২২) নামে দুই তরুণের বিরুদ্ধে নওগাঁ সদর থানায় মামলা করেন।
মামলার এজহার সূত্রে জানা যায়, একই এলাকার রিহান ইসলাম (২৩) সিফাতকে দীর্ঘদিন ধরে উত্যক্ত করে আসছিল। গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় বাড়ির সামনের রাস্তা থেকে সিফাতকে তুলে নিয়ে একটি পরিত্যক্ত বাড়িতে আটকে রেখে শ্লীলতাহানির চেষ্টা করে রিহান। এক সময় ওই কিশোরী বখাটের হাত থেকে ছুটে সে বাড়িতে চলে আসে। পরে অপমান সইতে না পরে গতকাল রাতে গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করে ওই কিশোরী।
ওই কিশোরীর স্বজন ও স্থানীয় বাসিন্দা সূত্রে জানা যায়, নওগাঁ পিএম বালিকা উচ্চবিদ্যালয়ে অষ্টম শ্রেণিতে পড়াশোনা করত স্বর্ণা। দীর্ঘদিন ধরে তাকে উত্ত্যক্ত করত রিহান। এর আগে বিষয়টি নিয়ে দুই পরিবারের মধ্যে আলোচনা হয়। তখন রিহানের বাবা-মা তাদের ছেলে এ ধরনের ঘটনা আর ঘটাবে না বলে স্বর্ণার পরিবারকে আশ্বস্ত করেন।
গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা সাতটার দিকে স্বর্ণাকে বাড়ির পাশের রাস্তা থেকে মোটরসাইকেলে করে রিহান ও সৌরভ (২২) নামে অপর এক তরুণের সঙ্গে যেতে দেখতে পান স্থানীয় লোকজন। পরে রাত ১০টার দিকে ওই কিশোরী বাড়িতে ফিরে আসে। বাড়িতে ফিরে সে তার মাকে জানায়, বখাটে রিহান ও সৌরভ তাকে জোর করে তুলে নিয়ে যায় এবং খাস নওগাঁ এলাকার একটি পরিত্যক্ত বাড়িতে নিয়ে গিয়ে তার শ্লীলতাহানির চেষ্টা করে। আত্মসম্মানের ভয়ে সিফাতের বাবা-মা বখাটে রিহানের বিরুদ্ধে তখন কোনও অভিযোগ করেননি। গতকাল শুক্রবার রাতে নিজের শয়ন কক্ষের সিলিং ফ্যানের সঙ্গে গলায় ওড়না পেঁচিয়ে আত্মহত্যা করে সিফাত সুলতানা।
ওই কিশোরীর বাবা দীপু দেওয়ান বলেন, বখাটে রিহান অনেক দিন ধরে আমার মেয়েকে উত্ত্যক্ত করছিল। এ ব্যাপারে রিহানের মা-বাবাকে বলেও কোনো কাজ হয়নি। সর্বশেষ গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় রিহান আমার মেয়েকে জোর করে তুলে নিয়ে যায় এবং তার ওপর শারীরিক নির্যাতন চালায়। আমার মেয়ে এই অপমান সহ্য করতে না পেরে আত্মহত্যা করেছে। আমি ঘটনার বিচার চাই।
অভিযুক্ত রিহান ও সৌরভ নওগাঁ পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের কম্পিউটার বিভাগের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী। রিহানের বিরুদ্ধে এর আগে নওগাঁ সদর থানায় চাঁদাবাজির একটি মামলাও রয়েছে। ওই মামলায় তিনি গ্রেপ্তারও হয়েছিলেন। ওই মামলার পর তিনি পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট শাখা ছাত্রলীগের সদস্য পদ থেকে তাকে বহিষ্কার করা হয়।
এ ব্যাপারে নওগাঁ সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সোহরাওয়ার্দী হোসেন বলেন, ঘটনা জানার পর আজ বেলা ১১টার দিকে ওই কিশোরীর মরদেহ উদ্ধার করা হয়। পরে নওগাঁ সদর হাসপাতালে ময়নাতদন্ত শেষে মরদেহ স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। এ ঘটনায় ওই কিশোরীর বাবা বাদী হয়ে রিহান ও সৌরভ নামে দুই তরুণের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন। ঘটনার পর থেকে রিহান ও সৌরভ পলাতক রয়েছে। তবে আসামীদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

Categories