র‌্যালি, কেককাটা এবং আলোচনা সভার মধ্য দিয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় চট্রগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় দিবস পালিত।

প্রকাশিত: ১০:৫২ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ১৯, ২০২২

র‌্যালি, কেককাটা এবং আলোচনা সভার মধ্য দিয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় চট্রগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় দিবস পালিত।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ৫৭তম চট্রগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় দিবস পালিত হয়েছে। ১৮ নভেম্বর শুক্রবার র‌্যালি, কেককাটা এবং আলোচনা সভার মধ্য দিয়ে ‘চট্রগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় এক্স স্টুডেন্টস এসোসিয়েশন’ এর উদ্যোগে ৫৭তম চট্রগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় দিবস পালিত হয়। বিকাল ৫টায় শহরের বঙ্গবন্ধু স্কয়ার থেকে র‌্যালি শোভাযাত্রা বের হয়ে সরকারি কলেজের শহীদ মিনার চত্বরে শেষ হয়।

সন্ধ্যা ৭ টায় আনন্দঘন পরিবেশে কেক কাটেন এসোসিয়েশনের উপস্থিত সদস্যবৃন্দ। কেক কাটা শেষে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সরকারি কলেজ ‘শিক্ষক মিলনায়তনে’ আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

আলোচনায় চট্রগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় এক্স স্টুডেন্টস এসোসিয়েশন ব্রাহ্মণবাড়িয়া’র সভাপতি (১৪তম ব্যাচ) অ্যাড. জহিরুল ইসলাম ভূঁইয়া বলেন, ‘চট্রগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় এক্স স্টুডেন্টস এসোসিয়েশনে যারা আছি আমরা একটি পরিবারের মতো। বয়স হয়ে গেলেও সবাই যখন একত্রিত হই নিজেকে তখন তরুণ মনে হয়।’ অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন ব্রাহ্মণবাড়িয়া সরকারি কলেজের সহযোগী অধ্যাপক মো. খালেদ হোসেন খান।

চট্রগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০তম ব্যাচের শিক্ষার্থী ব্রাহ্মণবাড়িয়া সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ বিভূতিভূষণ দেবনাথ বলেন, ‘আমাদের এসোসিয়েশনের সদস্যবৃন্দ স্ব স্ব ক্ষেত্রে প্রতিষ্ঠিত এবং বেশ সুনামের সাথে কাজ করে যাচ্ছে। একত্রিত হওয়ার মাধ্যমে অসাধারণ স্মৃতি রোমন্থন হয়।’

এ সোসিয়েশনের সহ-সভাপতি নবীনগর সরকারি কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ মো.জাকির হোসেন বলেন, ‘আমরা যারা চবিয়ান আছি সবসময় হাতে হাত রেখে সামনের দিনগুলোতে ভালো কিছু করব ইনশাআল্লাহ।’

বিশ্ববিদ্যালয় জীবনের স্মৃতিচারণ করে অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন মাধ্যমিক উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষাবোর্ড কুমিল্লা’র সচিব, গ্যাস ফিল্ডের ডিজিএম আবুল কাশেম চৌধুরী, বাংলাদেশ গ্যাস ফিল্ড কো. লিমিটেড এর অডিট বিভাগের ম্যানেজার জনাব মোঃ ফায়েজুল ইসলাম বাদল, অধ্যক্ষ সোহাগ ভূঁইয়া,  উপাধ্যক্ষ মো.ইকবাল হোসেন মৃধা, সহকারি অধ্যাপক আশরাফুল ইসলাম, সহকারি অধ্যাপক এনামুল কবীর সুমন, সহকারি অধ্যাপক জুরু মিয়াসহ আরো অনেকে ।

স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে অনেকেই আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েন। বিশেষ করে শিক্ষার্থীদের বিশ্ববিদ্যালয়ে আসা-যাওয়ার ঐতিহ্যবাহী শাটল ট্রেনে চড়ার নানা আনন্দঘন স্মৃতি উঠে আসে। আলচনা সভার আলচনায় ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় উপজেলাভিত্তিক চট্রগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় এসোসিয়েশন গঠন করার উপর গুরুত্বারোপ করা হয়।

প্রসঙ্গত  ১৯৬৬ সালের ১৮ নভেম্বর ৪টি বিভাগ, মাত্র ৭জন শিক্ষক ও ২০০ শিক্ষার্থী নিয়ে যাত্রা শুরু করে চট্রগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়।  বর্তমানে বিশ্ববিদ্যালয়ে বিভাগ রয়েছে ৪৮টি, ইনস্টিটিউট ৬টি। শিক্ষার্থীর সংখ্যা প্রায় ২৭ হাজার ৫৫০ এবং শিক্ষক রয়েছেন ৯০৬ জন।


Categories