ঢাকা, ১১ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ২৭শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ | ১৩ই মহর্‌রম, ১৪৪৪ হিজরি

রামগড়ে মা ও মেয়ের গলা কাটা লাশ উদ্ধার


প্রকাশিত: ১:৪৭ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ৪, ২০২২

নুরুল কবির আরমান, খাগড়াছড়ি প্রতিনিধিঃ খাগড়াছড়ি জেলা’র রামগড় উপজেলা ২নং পাতাছড়া ইউনিয়নের নাকাপা মধুপুর এলাকার একটি বাড়ি থেকে মা ও মেয়েরগলা কাটা লাশ উদ্ধার করেছে রামগড় থানা পুলিশ।
নিহতরা হলেন খালেদা আক্তার পিংকি (২১) ও তার ৬ মাসের মেয়ে সালমা আক্তার।

সোমবার (৩জানুয়ারী) বিকেলে মধুপুর এলাকার নিজ বাসা থেকে রামগড় থানা পুলিশ খবর পেয়ে লাশ দু’টি উদ্ধার করে। রামগড় থানার (ওসি) মোহাম্মদ শামসুজ্জামান লাশ উদ্ধারের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।
স্থানীয়রা জানান বাসাটিতে খালেদা তার ৬ মাসের মেয়ে সালমা ও স্বামী সোলেমান সহ দু’মেয়ে সন্তান নিয়ে বসবাস করতেন।

মেয়ের বাবা কৃষক আব্দুল খালেক দুলাল মিয়া ঘটনার বর্ণনা দিয়ে জানান গত বৃহস্পতিবার থেকে মেয়ে এবং জামাতাকে ফোনে না পেয়ে মেয়ের বাড়িতে গেলে ঘরের দরজায় তালা অবস্থায় দেখতে পাই, একাধিকবার ফোন করেও মেয়ের কোন সন্ধান না পাওয়াতে বিভিন্ন জায়গায় খুঁজাখুঁজি করতে থাকি। মেয়ের শাশুড়িকে সাথে নিয়ে ৩ জানুয়ারী আবারও মেয়ের বাড়িতে যাই, ঘরের কাছে গেলে দূর্গন্ধ পেয়ে মেয়ের শাশুড়ি এবং প্রতিবেশীদের সহযোগিতায় ঘরের তালা ভেঙ্গে দেখি মেয়ে এবং নাতনির গলা কাটা লাশ পড়ে আছে। পড়ে প্রতিবেশীরা রামগড় থানা পুলিশকে খবর দিলে পুলিশ লাশ উদ্ধার করেন।

পারিবারিক ও স্থানীয় সুত্রে আরো তথ্য পাওয়া যায় যে নিহতের স্বামী মোহাম্মদ সোলেমান (২৮) নোয়াখালীর একটির মেয়ের সাথে পরকীয়ার সাথে জড়িত ছিলো, সেই বিষয়ে স্বামী এবং স্ত্রীর মাঝে ঝগড়া হয়ে থাকতে পারে, ঝগড়ার জেরে এ মর্মান্তিক হত‍্যাকান্ড ঘটিয়ে পালিয়ে গেছেন সোলেমান,এ পর্যন্ত সোলেমানের কোন খুঁজ পাওয়া যায়নি।

নিহতের ভাই ইমরান হোসেন জানান আমার দুলাভাই পরকীয়া সাথে জড়িত এনিয়ে বোনের সাথে প্রায় সময় ঝগড়া হতো, গত বৃহস্পতিবার বড় মেয়েদের কে এক আত্মীয় “র বাসাতে রেখে এসে সোলেমান আমার বোন খালেদা ও তার ৬ মাসের শিশুসন্তানকে জবাই করে হত‍্যা করে পালিয়ে যায়।

রামগড় থানার (ওসি) মোহাম্মদ শামসুজ্জামান গনমাধ‍্যম কর্মীদের জানান পারিবারিক সমস্যা কারণে এই হত‍্যাকান্ড ঘটে থাকতে পারে,খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে মরদেহ বিছানায় পড়ে থাকতে দেখেন এবং লাশ উদ্ধার করেন। মেয়ের বাবা বাদী হয়ে মামলার করেছেন।