মুজিব বর্ষেই বেসরকারি শিক্ষকরা বঞ্চনা ও বৈষম্যের দূরীকরণ চায়। ।

প্রকাশিত: ১:২৫ অপরাহ্ণ, জুলাই ৬, ২০২০

মোঃ বিল্লাল সিকদারঃ শিক্ষকত একটি মহান পেশা। দুনিয়াতে আর এমন একটি পেশা নেই। শিক্ষক মানুষ গড়ার কারিগর। একটি দেশ জাতি ও সমাজ তার ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে যে বিশ্বাস, মূল্যবোধ দেশপ্রেম, দক্ষতা ও নৈতিকতাবোধ দিয়ে গড়ে তুলতে চায় সেই কাজ সম্পন্ন করেন সম্মানিত শিক্ষকবৃন্দ। শিক্ষা মানুষের মৌলিক অধিকার ও জাতীয় উন্নয়নের চাবিকাঠি। শিক্ষার গুণগত উন্নয়ন ব্যতিরেকে জাতীয় উন্নয়ন সম্ভব নয়। অথচ সেই শিক্ষক সমাজ পূর্ণাঙ্গ বাড়ি ভাড়া, চিকিৎসা ভাতা,পূর্ণাঙ্গ উৎসব ভাতা,শিক্ষা-ভাতা,সহ বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা থেকে বঞ্চিত। এটি একেবারেই অনভিপ্রেত।আমাদোর পার্শ্ববর্তী দেশ ভারত সহ অন্যান্য দেশে শিক্ষকদের বেতনভাতা আমাদের দেশ থেকে অনেক বেশি।তাছাড়া শিক্ষকদের বর্তমান বেতন থেকে কোন বাড়তি সুবিধা না দিয়ে অতিরিক্ত ৪% জোর করে কেটে নিয়ে গেছে। সেটা আরেক জুলুম। তাতে প্রায় সাড়ে পাঁচ লাখ শিক্ষক হতাশায় তিমিরে নিমজ্জিত । এ অবস্হায় এত বড় কঠিন দায়িত্ব পালনকারি শিক্ষকদের বঞ্চিত করে তাদের থেকে জাতীয় উন্নয়ন সহ ভালো ফল,তথা জাতীয় সম্পদ কীভাবে আশা করা যায়? মাননীয়া প্রধান মন্ত্রী আপনাকে এ বঞ্চনা আর বৈষম্য দূর করে জাতীয় করণের ঘোষণা করার স্বনির্বদ্ধ আবেদন জানাচ্ছি। –

মো: বেল্লাল শিকদার,রাজাপুর ঝালকাঠী।


Categories