ভারতের গুরুত্বপূর্ণ ক্রিকেট স্টেডিয়াম এম চিন্নাস্বামীকে করোনা সেন্টারে রূপান্তরিত করেছে

প্রকাশিত: ২:৫০ অপরাহ্ণ, জুলাই ১১, ২০২০

বর্তমানে সারা বিশ্বে যুক্তরাষ্ট্র, ব্রাজিলের পরই এখন ভারতীয়দের অবস্থান।  আক্রান্তের সংখ্যা হিসেব করলে ভারত এখন রয়েছে তিন নম্বরে।  মৃতের সংখ্যাও বাড়ছে হু হু করে। পরিস্থিতি দিনের পর দিন খারাপই হচ্ছে ভারতে।

এমন পরিস্থিতিতে বিশ্বকাপের ম্যাচ খেলা, ভারতের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ ক্রিকেট স্টেডিয়াম এম চিন্নাস্বামীকে করোনা সেন্টারে রূপান্তরিত করেছে কর্ণাটক রাজ্য সরকার। কর্ণাটক রাজ্য সরকারের মুখ্যমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে এ আদেশ জারি করা হয়।

কর্ণাটক রাজ্যের কোভিড ম্যানেজমেন্টের প্রধান আর অশোকা বলেছেন, ‘ব্যাঙ্গালুরুর মানুষেদের ভীত হওয়ার প্রয়োজন নেই। প্রয়োজন সব সরঞ্জামাদি এবং প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে। আমাদের ৬০০ প্লাস অ্যাম্বুলেন্স তৈরি রয়েছে যে কোনো পরিস্থিতি মোকাবেলা করার জন্য।’

ভারতের মধ্যে সবচেয়ে ভয়াবহ অবস্থা মহারাষ্ট্রের। এই রাজ্যটিতে এখনও পর্যন্ত ২ লাখ ৩০ হাজার ৫৯৯ জন মানুষ আক্রান্ত। একইভাবে অবস্থা খারাপ বেঙ্গালুরুতেও। সেখানে একদিনে ১,৩৭৩ জন নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন। এখনও পর্যন্ত মারা গেছেন ৪৭০ জন মানুষ।

বৃহস্পতিবার ২৪ ঘণ্টায় ভারতের বাকি মেট্রো শহরগুলির চেয়ে বেশি সংক্রমণ ধরা পড়েছে বেঙ্গালুরুতেই। যার ফলে সেখানকার প্রশাসন লকডাউন নিয়মের কড়াকড়ি আরোপের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। যার ফলে বেঙ্গালুরুর বিখ্যাত এম চিন্নাস্বামী স্টেডিয়ামকে এখন কোভিড সেন্টারে পরিণত করা হয়েছে।

ব্যাঙ্গালুরুর এম চিন্নাস্বামী স্টেডিয়াম ভারতীয় ক্রিকেটে অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ ভেন্যু। ১৯৮৭, ১৯৯৬, ২০১১ বিশ্বকাপ, ২০১৬ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ, আইপিএলসহ সব সিরিজ এবং টুর্নামেন্টের গুরুত্বপূর্ণ ভেন্যু হিসেবে ব্যবহার হয়ে আসছিল এই স্টেডিয়ামটি।

এমনকি ব্যাঙ্গালুরু প্যালেসকেও কোভিড কেয়ার সেন্টারে পরিণত করা হয়েছে রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে। বৃহস্পতিবার থেকে এই দুই জায়গায় করোনা আক্রান্তদের চিকিৎসা সুবিধা দেওয়ার বন্দোবস্ত করা হয়েছে বলে জানা গেছে কর্ণাটক রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে।


Categories