ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিজয়নগর উপেজেলায় কোন কলেজই জাতীয়করণ হয় নি।

প্রকাশিত: ১১:২৫ পূর্বাহ্ণ, জুন ৩০, ২০২০

মো.সাদেকুল ইসলাম ভূঁইয়া,বিজয়নগর,ব্রাহ্মণবাড়িয়া :

বর্তমান সরকারের নির্বাচনি ইশতেহার অনুযায়ী যে সকল উপজেলায় সরকারী স্কুল / কলেজ নেই, ঐ সকল  উপজেলা একটি স্কুল ও একটি কলেজ সরকারীকরণের ঘোষণার কথা ছিল।  সেই অনুযায়ী  এপর্যন্ত ৩০০ শতাধিক  কলেজ জাতীয়করণ হয়েছে।

কিন্তু অত্যন্ত দুঃখের বিষয়, যেকোন অজ্ঞাত কারণে বিজয়নগর উপজেলার কোন কলেজই সরকারীকরণের ঘোষণা অাসে নি।

যখন একের পর এক কলেজ জাতীয়করণের ঘোষণা অাসছিল, তখন  খুব আগ্রহ নিয়ে বুক বেঁধেছিলেন বিজয়নগর উপজেলার  চম্পকনগর উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী কলেজ’র সকল শিক্ষক, শিক্ষার্থী, অভিভাবক ও বিজয়নগর এলাকার হাজার হাজার জনগণ।

উল্লেখ্য যে বিগত নির্বাচনের পূর্বে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর – বিজয়নগরের মাটি ও মানুষের নেতা, বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রনালয়ের মাননীয় সভাপতি  জনাব র. আ.ম. উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী এম পি  এলাকার জনগণকে আশ্বস্ত করেছিলেন কলেজটি জাতীয়করণ করার জন্য তিনি প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহন করবেন।  সেই থেকে উপজেলার আপামর জনসাধারণ সোনালী স্বপ্ন বুনে অপেক্ষায় আছেন কখন তাদের স্বপ্নপূরণ হবে? কবে তাদের অপেক্ষার পালা শেষ হবে? একটি বিশাল জনগোষ্ঠী একবুক অাশা নিয়ে অপেক্ষায় অাছেন, স্বপ্নের জাতীয়করণের মাধ্যমে উপজেলার শিক্ষাব্যবস্হা এগিয়ে যাবে।

কলেজ জাতীয়করণের বিষয়ে  চম্পকনগর উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী কলেজ এর অধ্যক্ষ জনাব আব্দুস সাত্তার সরকার ” দৈনিক অামাদের ফোরামকে বলেন,  ” আমাদের উপজেলাতে তিনটি কলেজ রয়েছে। তার মধ্যে উপজেলার কেন্দ্রবিন্দুতে অবস্হিত এই কলেজটি।সরকারের নির্বাচনি ইশতেহার অনুযায়ী অামরাই জাতীয়করণ পাবার একমাত্র দাবীদার। তাই,  বর্তমানে এটা বিজয়নগর বাসীর প্রাণের দাবি চম্পকনগর উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী কলেজ জাতীয়করণ করে অত্র উপজেলার বেশিরভাগ জনগোষ্ঠী  শিক্ষার সুযোগ নিশ্চিত করবেন বলে তিনি অাশাবাদ ব্যক্ত করেন।

তিনি আরো  বলেন,  ” এই কলেজটি জাতীয়করণ হলে অত্র এলাকার পিছিয়ে থাকা শিক্ষার্থীরা কম খরচে পড়ার সুযোগ পাবে,তাতে করে এই উপজেলার শিক্ষার হারও বৃদ্ধি পাবে এবং তারা সরকার ঘোষিত Vision -2021 এ অবদান রাখতে পারবে বলে তিনি দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করেন।

মাননীয় এম পি মহোদয়ের দৃষ্টি অাকর্ষণ করে   তিনি অারো যোগ করেন, “অাধুনিক বিজয়নগর উপজেলা অাপনার হাতেই গড়া,  তাই এই কলেজটি জাতীয়করণ করে উপজেলাটিকে স্বয়ংসম্পূর্ণ করতে অাপনার হস্তক্ষেপকেই অামরা গুরুত্বপূর্ণ মনে করছি। ”

এ বিষয়ে সহকারী অধ্যাপক জনাব লুৎফর রহমান চৌধুরী লিটন বলেন, ” আমাদের এলাকার অনেক গরীব ছাত্রছাত্রী আছে, যারা সরকারী কলেজে পড়ার সুযোগ পেলে তাদের পরিবারের আর্থিক সংকটে পরতে হবে না। কলেজটি জাতীয়করণের জন্য মাননীয় সংসদ সদস্য মহোদয় ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সুদৃষ্টি কামনা করছি। ”

কলেজ জাতীয়করণের বিষয়ে আই সি টি  প্রভাষক জনাব হেলাল মিয়া বলেন, ” চম্পকনগর উবায়দুল মোকতাদির কলেজ জাতীয়করণ করা এখন সময়ের দাবি।এই অবহেলিত বিজয়নগর উপজেলাকে নতুনভাবে, ভিন্ন অাঙ্গিকে প্রতিষ্ঠা করেছেন অামাদের মাননীয় এম পি মহোদয়। তাই,তিনিও অাশা করেন,  এই প্রত্যন্ত অঞ্চলের শিক্ষাকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য কলেজটি জাতীয়করণ করতে এম পি মহোদয় প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহন করবেন। “