বাংলাদেশ বেসরকারি শিক্ষক কর্মচারী ফোরামের সম্মেলন স্থগিত

প্রকাশিত: ১:০৯ পূর্বাহ্ণ, মার্চ ১৩, ২০২১

বাংলাদেশ বেসরকারি শিক্ষক কর্মচারী ফোরামের সম্মেলন স্থগিত বাংলাদেশ বেসরকারি শিক্ষক কর্মচারী ফোরামের পূর্বনির্ধারিত ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন -২০২১ এডহক কমিটি ও সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির আহ্বায়ক বিপ্লব কান্তি দাস এর সভাপতিত্বে সকাল ১০ ঘটিকায় কুর্মিটোলা হাই স্কুল এন্ড কলেজের অডিটোরিয়ামে শুরু হয় সম্মেলনে স্বাগত বক্তব্য পাঠ করেন সংগঠনের মহাসচিব জনাব আব্দুল খালেক। উদ্বোধনী বক্তব্য দেন সংগঠনের সভাপতি জনাব সাইদুল হাসান সেলিম। ছাড়াও বিভিন্ন বক্তারা সংগঠনের সফলতা ও ব্যর্থতা নিয়ে বক্তব্য দেন বক্তব্যে এক পর্যায়ে সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির সদস্য এবং বাংলাদেশে বেসরকারি শিক্ষক কর্মচারী ফোরামের যুগ্ম যুগ্ম মহাসচিব জি এম শাওন যখন বক্তব্য দিচ্ছেন তখন সংগঠনের বর্তমান সভাপতি জনাব সাইদুল হাসান সেলিম কে পুনরায় সভাপতি করার দাবিতে জ্যোতিষ মজুমদার, কামরুল হাসান, আরিফুল ইসলাম, এর নেতৃত্বে বহিরাগত ২০/২৫ জন সন্ত্রাসী হামলা করে হামলা করে আতঙ্ক সৃষ্টি করে। এসময় সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির সদস্যএবং কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্যরা দুতালায় অবস্থান নেয় কয়েক ঘন্টা তারা এই তাণ্ডব চালায় বিকাল চারটা পর্যন্ত পর্যন্ত সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির সদস্য, এডহক কমিটির সদস্য ও কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্যরা আটকে থাকে এ সময় বহিরাগত সন্ত্রাসীরা টেবিলের উপর থাকা মোবাইল এবং ব্যয় নিয়ে যায়। সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির সদস্যসচিব জহিরুল ইসলাম কে প্রশ্ন করলেন তিনি জানান সাইদুল হাসান সেলিম একজন নিম্ন মাধ্যমিক প্রতিষ্ঠান সভাপতি। তাই এত বড় সংগঠন যে সংগঠন যেখানে স্কুল,কলেজ,মাদ্রাসা এবং বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের শিক্ষকরা আছে সেখানে কোনক্রমেই একজন নিম্ন মাধ্যমিক স্কুলের প্রধান শিক্ষক সভাপতি হতে পারে না। সাইদুল হোসেন সেলিম পুনরায় পুনরায় সভাপতি করতে মরিয়া হয়ে ওঠে কিন্তু ভবিষ্যতে কোন বাবেশিফোতে নেতৃত্ব কুক্ষিগত করার জায়গা নেই। সাধারণ শিক্ষকরা যাকে পছন্দ করেন তাকে আমরা সভাপতি করা হবে। সাইদুল হাসান সেলিমের ইন্ধনে হামলা হয়েছে। আমরা এর তীব্র নিন্দা জানাই। কার্যনির্বাহী ও সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটি জরুরী মিটিং এ সম্মেলন এর সকল কার্যক্রম মুলতবি ঘোষণা করা হয়। দ্রুতসময়ে বাংলাদেশের সকল শিক্ষক কর্মচারীদের নিয়ে জাতীয় প্রেসক্লাবে সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে। ফোনে যোগাযোগ করা হলে সাইদুল হাসান সেলিম উত্তর না দিয়ে ফোন কেটে দেন। সংগঠনের মহাসচিব আবদুল খালেক এর সত্যতা স্বীকার করেন।