“বাংলাদেশের ইতিহাসে প্রথম-রেমিট্যান্স ও রিজার্ভে দুটুতেই রেকর্ড ইতিহাস”

প্রকাশিত: ১১:১৩ অপরাহ্ণ, আগস্ট ৩, ২০২০

বাংলাদেশের ইতিহাসে প্রথম-রেমিট্যান্স ও রিজার্ভে দুটুতেই রেকর্ড।

২০২০ সালের জুলাই  মাসে দেশে যে পরিমাণ রেমিট্যান্স এসেছে, তা বাংলাদেশের ইতিহাসে প্রথম ঘটনা। এ ছাড়া উল্লিখিত সময়ে দেশে বৈদেশিক মুদ্রার যে রিজার্ভ হয়েছে, তা দেশের ইতিহাসে আর কখনো হয়নি। করোনাভাইরাসের বৈশ্বিক মহামারি সত্ত্বেও শুধু জুলাই মাসে ২ দশমিক ৬ বিলিয়ন ডলারের রেমিট্যান্স এসেছে। অন্যদিকে, বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ দাঁড়িয়েছে ৩৭ দশমিক ২৮৭ বিলিয়ন মার্কিন ডলার।  সোমবার অর্থ মন্ত্রণালয়ের এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

জনসংযোগ কর্মকর্তা গাজী তৌহিদুল ইসলাম স্বাক্ষরিত ওই বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, এর আগে জুন মাসে প্রবাসীরা রেমিট্যান্স পাঠিয়েছিলেন ১ দশমিক ৮৩৩ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। সরকার সংশ্লিষ্টরা মনে করছেন, প্রবাসী আয়ের এ ঊর্ধ্বমুখী ধারা অব্যাহতের ক্ষেত্রে সরকারের সময়োপযোগী ২ শতাংশ নগদ প্রণোদনাসহ বিভিন্ন পদক্ষেপ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে।

বিজ্ঞপ্তিতে আরো বলা হয়, রেমিট্যান্সের পাশাপাশি বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ ৩৭ দশমিক ২৮৭ বিলিয়ন মার্কিন ডলারে উন্নীত হয়েছে। যা বাংলাদেশের ইতিহাসে এযাবতকালের মধ্যে সর্ব্বোচ্চ। এর আগে গত ৩০ জুন বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ ছিল ৩৬ দশমিক ০১৬ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। ওই সময় পর্যন্ত সেটাই ছিল বাংলাদেশের ইতিহাসে সর্বোচ্চ। রিজার্ভের এই বৃদ্ধিতে রেমিট্যান্স প্রবাহ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে।

অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল  বেশি হারে রেমিট্যান্স পাঠানোয় প্রবাসীদের কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ দিয়েছেন। তিনি বলেছেন, গত অর্থবছরের শুরু থেকে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনায় প্রবাসীদের পাঠানো আয়ের ওপর ২ শতাংশ নগদ প্রণোদনা প্রদান অব্যাহত আছে। ফলে গত বছর ১ হাজার ৮০০ কোটি ডলারের বেশি রেমিট্যান্স এসেছে।


Categories