বসন্তপুরের রাস্তার বেহাল দশায় দুর্ভোগে এলাকাবাসী ; দেখার নেই কেউ

প্রকাশিত: ১২:১৪ অপরাহ্ণ, জুলাই ২৬, ২০২০
সোহেল আহমদ সাজু,  তাহিরপুর, সুনামগঞ্জ।।সুনামগঞ্জ জেলার বিশ্বম্ভরপুর    উপজেলার দক্ষিণ বাদাঘাট ইউনিয়নের শক্তিয়ারখলা বাজার পয়েন্ট হতে বসন্তপুর যাওয়ার রাস্তাটি বেহাল দশা, ফলে দুর্দশায় এলাকাবাসী।
এ বিষয়ে বিশ্বম্ভরপুর উপজেলার দক্ষিণ বাদাঘাট ইউনিয়নের সম্ভাব্য চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী ও আওয়ামী লীগ নেতা জামাল হোসেন   জানান, শক্তিয়ারখলা বাজার পয়েন্ট হতে বসন্তপুর যাওয়ার রাস্তার বেহেল দশা হওয়ায় বন্যার আগে আমি নিজে রাস্তা মেরামত করে দিয়ে ছিলাম। তারপর, বন্যায়  সবুজ কুঁড়ি বিদ্যানিকেতন এর পাশে দুই জায়গায় রাস্তা ভাঙ্গনের সৃষ্টি হয় আমি সেখানেও নিজেস্বঅর্থায়নে দুটি বাঁশের সাখো তৈরি করে দিয়েছি যেন আপাদত মানুষ চলাচল করতে  পারে। তিনি আরও বলেন,   কিন্তু দুঃখের  বিষয় রাস্তা নির্মাণ আমল থেকে শুরু করে আজ পর্যন্ত রাস্তাটিতে এক কোদাল মাটি ফেলা হয়নি,অথচ রাস্তাটির প্রকল্প ঠিকেই আসে কিন্তু প্রকল্পের টাকা দিয়ে এই রাস্তাটিরকাজ করা হয়না ; ফলে  দুর্ভোগে পরেছে এলাকাবাসী।
তিনি আরও বলেন, সিরাজপুর (পেঠনা), উলাসনগর, উমরপুর,  সরকের হাটি, রহমতপুর, মোদেরগাওঁ,  ইকরআটিয়া, পুরানগাও, চলিলপুর,  বসন্তপুর গ্রামের মানুষের চলার একমাত্র মাধ্যম হচ্ছে তাদের গ্রামের সামন দিয়ে যাওয়া এই কাঁচা রাস্তা।   স্কুল-কলেজ ও মাদ্রাসার  ছাত্র-ছাত্রীরা অনেক কষ্টকরে জীবনের ঝুঁকি যেতে হয় বিদ্যালয়ে তা ছাড়া ও ঐ কাঁদা মাখা রাস্তা ও ভাঙ্গা  রাস্তাটি দিয়ে পেঠনার মাঠ হয়ে শক্তিয়ারখলা পয়েন্টে থেকে পূর্বে সুনামগঞ্জ রোড পশ্চিমে বাদাঘাট দক্ষিণে তাহিরপুর রোড ও উত্তরে বসন্তপুর রোড পেঠনা হয়ে এশিয়া মহাদেশের দ্বিতীয় রাবাড্রাম এর উপর দিয়ে উলাসনগর     গ্রামের উপর দিয়ে রাস্তাটি সরাসরি চলেযায় শক্তিয়ারখলা পয়েন্ট থেকে রাস্তাটি নিচু হওয়ায় বেহাল দশা হয়ে পড়েছে এলাকাবাসী দেখার নেই কেউ।
ডাঃ এহসানুল হক মিলন বলেন, বসন্তপুর রাস্তার দুর্শার করণে রোগী নিয়ে বিশ্বম্ভরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আসতে অনেক ভোগান্তি হয়, ডেলিভারির রোগী তো এই রাস্তা দিয়ে আনা কোন ভাবেই সম্ভব নয়।  আমি মনে করি দ্রুত এই রাস্তা মেরামত করা প্রয়োজন এই দুর্দশা থেকে পরিত্রাণ করা জরুরী।
দক্ষিণ বাদাঘাট ইউনিয়নের  বর্তমান চেয়ারম্যান মোঃ এরশাদ মিয়া বলেন
যেহেতু পূর্বে (২০১৭ সালে)  উক্ত কাজের টেন্ডার হয়ে ছিল তাই নতুন কোন টেন্ডার হয়নি।  আমি উপর মহলকে অবগত করেছি। দ্রুতই কাজ হবে বলে আমি মনে করি।
বিশ্বম্ভরপুর উপজেলা চেয়ারম্যান শফর উদ্দিন কে উনার ব্যক্তিগত নাম্বারে (০১৭১২…….) ফোন করলে নাম্বারটি বন্ধ পাওয়া যায়।
বিশ্বম্ভরপুর উপজেলা প্রশাসনিক কর্মকর্তা সমীর বিশ্বাস (০১৭৭১…….) ফোন রিসিভ করেননি বলে বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়ন।