পয়েন্ট টেবিলের তিন নম্বরে থেকেও প্লে-অফে খেলা হলো না মিনিস্টার ঢাকার।

প্রকাশিত: ১১:০৭ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ১২, ২০২২

পয়েন্ট টেবিলের তিন নম্বরে থেকেও প্লে-অফে খেলা হলো না মিনিস্টার ঢাকার।

১২ ফেব্রুয়ারি শনিবার দিনের প্রথম ম্যাচে চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্সের কাছে সিলেট সানরাজার্স হারাতে ঢাকা নেমে যায় চারে। শেষ ভরসা ছিল খুলনা টাইগার্স ও কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স ম্যাচে। এই ম্যাচে খুলনা হারলেই প্লে-অফে চলে যেত ঢাকা। তবে শেষ পর্যন্ত খুলনা কুমিল্লাকে ১০ উইকেটে হারিয়ে দেয়ায় পয়েন্ট টেবিলে তিন নম্বরে থেকেও প্লে-অফে খেলা হলো না মিনিস্টার ঢাকার। লিগ পর্বে শেষ দিনের প্রথম ম্যাচের আগ পর্যন্তও ৯ পয়েন্ট নিয়ে তিন নম্বরে ছিল ঢাকা।

শনিবার দিনের দ্বিতীয় ম্যাচে খুলনাকে ১৮৩ রানের লক্ষ্য দিয়েও আঁটকাতে পারেনি পয়েন্ট টেবিলের দুই নম্বর দল কুমিল্লা। যদিও এই ম্যাচে নিয়মিত খেলোয়াড়দের বিশ্রামে রেখেছিল দলটি।

কুমিল্লার দেয়া বড় লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে দুই ওপেনার আন্দ্রে ফ্লেচার ও শেখ মেহেদী শুরু থেকেই ঝড় তোলেন ব্যাট হাতে। একের পর এক বাউন্ডারিতে দিশেহারা হয়ে পড়ে কুমিল্লার বোলাররা।

আন্দ্রে ফ্লেচার ২৭ বলে তুলে নেন ফিফটি। এরপর শেখ মেহেদী ফিফটি তোলেন ৩১ বলে। শেষ পর্যন্ত ফিফটিকে সেঞ্চুরিতে রূপ দেন ফ্লেচার। ৬০ বলে সেঞ্চুরি পূর্ণ করেন এই ক্যারিবীয় ব্যাটার।

দুই ওপেনারের জুটিতে জয়ের দ্বারপ্রান্তে পৌঁছে গেলে ভাঙে জুটি। জয় থেকে এক রান দূরে থাকতে শেখ মেহেদী সাজঘরে ফেরেন ৪৯ বলে ছয়টি চার ও ৪টি ছয়ে করা ৭৪ রান করে। ফ্লেচার ৬২ বলে সমান ছয়টি করে চার ও ছক্কায় ১০১ রানে অপরাজিত থেকে ছাড়েন মাঠ।

এর আগে টস জিতে ব্যাট করতে নেমে কুমিল্লা সংগ্রহ করে ৫ উইকেটে ১৮২ রান। দুই ওপেনার পারভেজ হোসেন ৭ ও মাহমুদুল হাসান করেন ৩৭ রান। মঈন আলী ৮ রান করে ফিরলেও এই ম্যাচের অধিনায়ক ফাফ ডু প্লেসি খেলেন শত রানের ইনিংস। ৫৪ বলে ৩টি ছয় ও ১২টি চারে ১০১ রান করে ফেরেন সাজঘরে। শেষ দিকে মাহিদুল ইসলাম করেন ১১ বলে ২০ রান। খুলনার হয়ে নাভিন, শেখ মেহেদী ও ফরহাদ রেজা ১টি করে উইকেট নিয়েছেন।


Categories