প্রসংঙ্গ করোনা: ভাঙছে স্বপ্ন, রাজধানী ছাড়ছে মানুষ

প্রকাশিত: ১২:২৩ অপরাহ্ণ, জুন ২৬, ২০২০
সম্পাদকীয় – আমাদের ফোরাম

করোনায় অনেক পরিবারের স্বপ্ন ভেঙে চুরমার হয়েছে। একসময় যারা গ্রাম থেকে শহরে এসে অনেক স্বপ্ন দেখেছিল আজ স্বপ্নভাঙার কষ্ট নিয়ে তারা শহর ছাড়ছে, আবার ছেড়েছে অনেকেই। সবচে’ বড় সংকট হলো- ১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধের মধ্য দিয়ে দেশ স্বাধীন হলেও ১৯৭৫ সালের প্রতিবিপ্লবের মধ্য দিয়ে মুক্তিযুদ্ধের চেতনার আর বাস্তবায়ন হয়নি। একের পর এক সেনাশাসনে দেশের অর্থনীতি কখনো স্থিতিশীল হয়নি। গ্রামীণ অর্থনীতির ভিত কখনো তৈরি হয়নি। কাজের খোঁজে তাই গ্রাম থেকে মানুষ শহরে পাড়ি জমিয়েছে। এখানে বসে স্বপ্ন দেখতে চেষ্টা করেছে। কিন্তু মহামারী করোনা তছনছ করে দিয়েছে সবকিছু।

দীর্ঘ সাড়ে তিন মাস থেকে অধিকাংশ পেশাজীবীর নেই এক টাকাও আয়। জমানো টাকাও শেষ হয়ে গেছে। আয় না থাকায় পরিবার নির্বাহের খরচ ও বাসাভাড়া দিতে না পারায় চলতি মাসের শুরুর দিকে পরিবার পাঠিয়ে দিয়েছেন বাড়িতে। ভাড়া বাসাও ছেড়ে দিয়ে উঠেছেন মেসে। এ রকম তালিকা ক্রমশ দীর্ঘ হচ্ছে।

একজন মো. আব্দুল হামিদের কথা বলা যেতে পারে। জীবিকার তাগিদে মৌলভীবাজারের কুলাউড়া থেকে ঢাকায় এসেছিলেন তিনি। প্রথমে কাজ করতেন একটি কোম্পানিতে। সেখান থেকে চাকরি যাওয়ার পর পাঠাও চালাতেন। প্রতিদিন ১ হাজার থেকে ১৫শ’ টাকা রোজগার করতেন। তার পাঠানো টাকায় অসুস্থ মা-বাবার চিকিৎসাসহ পরিবারের খরচ চলত। কিন্তু দেশে করোনার প্রাদুর্ভাব দেখা দেয়ার পর বন্ধ করে দেয়া হয় অ্যাপভিত্তিক রাইড শেয়ারিং। এতে বিপাকে পড়েন তিনি। খরচ তো আর থেমে থাকে না। নিজের সঞ্চয় দিয়ে প্রথম দুই মাস চলেছেন। পরে টাকা শেষ হওয়ায় বাড়ি চলে গেছেন। এম আই ইসলাম বলেন, আমার টাকায় চলত পুরো পরিবার। করোনা এসেই সব লণ্ডভণ্ড করে দিল। তাই বাড়িতে চলে এসেছি। এখানে দিনমজুর হিসেবে কাজ করে পরিবারের খরচ বহন করি। যদি পরিস্থিতি কোনোদিন ভালো হয়, হয়তো আবারো ঢাকায় ফিরব।

এ রকম অবস্থায় রাজধানীতে বাস করা হাজার হাজার মধ্যবিত্ত ও নিম্ন মধ্যবিত্ত মানুষের জীবনকে করে দিয়েছে এলোমেলো। করোনার কারণে চাকরি হারিয়েছেন অনেকে। আবার যারা ফুটপাথে ব্যবসা কিংবা বাসা বাড়িতে কাজ করতেন তাদেরও নেই কোনো কাজ। দীর্ঘদিনের বেকারত্ব ও আয়-রোজগার বন্ধ থাকায় বাসাভাড়া দেয়ার সামর্থ্য হারিয়েছেন অনেকে। ফলে ভাগ্য পরিবর্তনের স্বপ্ন নিয়ে দেশে বিভিন্ন অঞ্চল থেকে ইট-পাথরের শহর ঢাকায় আসা লোকজন এবার দুর্ভাগ্য নিয়ে ফিরে যাচ্ছেন বাড়িতে। প্রতিদিনই রাজধানীর বিভিন্ন সড়কে দেখা যায়, মালপত্র ভর্তি বাহনে করে ঢাকা ছাড়ছে মানুষ। তাদের মধ্যে কেউ দিনমজুর, কেউ ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী, কেউ গার্মেন্টস শ্রমিক, ছাত্র-প্রাইভেট শিক্ষক ও বিভিন্ন পেশার মানুষ।

একদিকে জীবন ও জীবিকার সংকট দেখা দেয়ায় যেমন সব ছেড়ে মানুষ গ্রামে ফিরতে বাধ্য হচ্ছে, আরেকদিকে রাজধানীর অনেক বাড়িতে দেখা দিয়েছে ভাড়াটিয়া সংকট। এর শেষ কোথায়? গ্রামেইবা এরা কি করবে? এদের সন্তানরা পড়বে কোথায়? তাহলে কারো প্রজন্ম কি দুর্বল বিদ্যা নিয়ে বড় হবে? সব ভেবে সিদ্ধান্ত নেয়ার সময় এসেছে বলে মনে করি।


Categories