“পেটের চর্বি বাড়ছে যে ৫টি কারণে”

প্রকাশিত: ১:২৫ অপরাহ্ণ, জুন ২৬, ২০২০

                চর্বি মানবদেহের জন্য সবচেয়ে ক্ষতিকর উপাদানগুলোর মধ্যে অন্যতম । পরিমাণের চেয়ে বেশি চর্বি জমলে দেহে নানা জটিল রোগ বাসা বাঁধে। হার্ট ব্লক, হার্ট অ্যাটাক, কিডনির সমস্যা, মেরুদণ্ডের সমস্যা, হাঁটুর ব্যথাসহ অনেক অসুখের সঙ্গেই অতিরিক্ত চর্বির সরাসরি সম্পর্ক রয়েছে। আর এ চর্বি বেশি জমে পেটে। অল্পতেই পেটে চর্বি জমে যায়। অনেক পরিশ্রম করেও সে চর্বি পোড়ানো (বার্ন) মুশকিল হয়ে যায়।

তাই সুস্থ জীবনের জন্য পেটে যাতে চর্বি না জমে সেদিকে নজর রাখা উচিত। স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা এমন ৫টি কারণ বলেছেন, যে কারণে দ্রুত পেটে চর্বি জমে যায়। এমনকি ব্যায়াম করলে অথবা ডায়েট করলেও এসব অভ্যাস থাকার ফলে চর্বিজনিত জটিলতা বাড়তেই থাকে। আসুন জেনে নেই, ভয়ংকর সেই ৫টি অভ্যাসের কথা।

১. একটু পর পর কিছু না কিছু খেতেই হয় আপনাকে। এ অভ্যাসটি ভালো। তবে বার বার যদি জাঙ্কফুড কিংবা স্ন্যাকস জাতীয় রিচ ফুড খেতে হয়, তাহলে কিন্তু স্বাস্থ্যের পক্ষে মোটেও ভালো নয়। এসব খাবারই পেটে দ্রুত মেদ জমাতে প্রধান ভূমিকা পালন করে।

২. এখন গরমের সময়। এ সময় অল্প পরিশ্রমেই হাঁপিয়ে ওঠেন অনেকে। আর ক্লান্তি কাটাতে হাতে নেন সফট ড্রিংকস। এসব ড্রিংকস প্রচুর চিনিসমৃদ্ধ পানীয় হওয়ায় খুব সহজেই আপনাকে মেদবহুল দেহ উপহার দিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

৩. ডায়েট কমাতে গিয়ে অনেকেই খাওয়া কমিয়ে দেন। এটা মোটেও ঠিক নয়। চিকিৎসকরা বলেন, বেশি খেলে যেমন পেটে মেদ জমে তেমনি বেশি ক্ষুধার্ত থাকার ফলেও পেটে মেদ জমে। তাই পরিমাণ মতো বার বার স্বাস্থ্যসম্মত খাবার খান। মেদ জমা প্রতিরোধ করুন।

৪. সকালের নাস্তা না খাওয়া পেটে মেদ জমার বড় কারণ। অনেকেই ডায়েট করার জন্য সকালে নাস্তা না খেয়ে একেবারে দুপুরের খাবার খেতে বসেন। দীর্ঘ সময় না খাওয়ার কারণে পেটে প্রচুর ক্ষুধা থাকে। তখন দুপুরে পরিমাণের চেয়ে বেশি খাওয়া হয়ে যায়। ফলে পেটে মেদও বেড়ে যায়।

৫. পেটে মেদ জমার আরেকটা বড় কারণ হলো- দীর্ঘ সময় বসে থাকা। অফিসের কাজে আমরা এমনই ডুবে থাকি যে, একটানা চার-পাঁচ ঘণ্টা বসে থাকি, কিন্তু বুঝতেই পারি না এত দীর্ঘ সময় বসে ছিলাম। এটা পেটের মেদ বাড়িয়ে দেয়। তাই প্রতি ২০ মিনিট অন্তর অন্তর ২০ সেকেন্ডের জন্য হলেও সোজা হয়ে দাঁড়ান। এটা যদি না পারেন তবে প্রতি ঘণ্টায় ১ মিনিট সোজা হয়ে হাঁটুন।


Categories