নওগাঁয় অটোবাইক চালককে বেধর মারপিট!

প্রকাশিত: ৭:৫৬ পূর্বাহ্ণ, জুন ২৬, ২০২০

অহিদুল ইসলাম, নওগাঁ প্রতিনিধিঃ নওগাঁয় মাত্র ১৩০ টাকা পাওনাকে কেন্দ্র করে অটো-বাইক আটকিয়ে অটো-বাইক চালককে বেদম মারপিট করে কাছে থাকা অটো-বাইক বিক্রি বাবদ বায়নার নেওয়া ২০ হাজার টাকা ছিনিয়ে নিয়েছে প্রতিপক্ষরা বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এঘটনাটি ঘটেছে গতকাল বুধবার (২৪ জুন) দিবাগত রাতে নওগাঁর মহাদেবপুর উপজেলার ভীমপুর ইউনিয়নের লক্ষিপুর-ভান্ডারপুর গ্রামীণ রাস্তায়।

মারপিটে গুরুতর আহত অটো-বাইক চালকের মা শ্রীমতি পূর্নীমা রানী অভিযোগ করে বলেন, আমার ছেলে বিপুল কুমার কবিরাজ (২৮) প্রতিদিনের ন্যায় অটো-বাইক নিয়ে সারাদিন ভাড়ামেরে রাতে বাড়িতে ফেরার পথে বাড়ির পার্শ্ববর্তী এলাকায় পৌছালে এসময় দঃ লক্ষিপুর গ্রামের শ্যমল চন্দ্রের তিন ছেলে পরিমল চন্দ্র (৩৫) অসিম চন্দ্র (২৬) ও মানিক চন্দ্র (২৮) সহ তাদের সহযোগী মদন চন্দ্র (২৮) অটো-বাইক ( চার্জার) আটক করে আমার ছেলে বিপুল কুমার কবিরাজকে এলোপাতারীভাবে বেদম মারপিট করেন। খবর পেয়ে আমি ও আমার ছোট ছেলে সহ কয়েকজন প্রতিবেশী দ্রুত ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখি আমার ছেলে মারাত্নক জখম ও অজ্ঞান অবস্থায় পড়ে রয়েছেন দেখে ছেলেকে উদ্ধার করে নওহাটা মোড়ে নিয়ে গেলে ডিউটিরত পুলিশের পরামর্শে রাতেই নওগাঁ সদর হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করি। পরে আমার ছেলে আমাকে জানান, মারপিটকারীরা আমার কাছে ১৩০ টাকা পাইবে এজন্য আমাকে আটক করে।

প্রথমে টাকা চায়, কিন্তু আমি বলি যে, আজ রাতে না নিয়ে সকালে টাকা নিও, আমি আমার অটো-বাইক বিক্রি করছি এবং বায়নার টাকা নিয়েছি আর রাতে টাকা দিব না সকালে টাকা দিব, এমন কথা বলার সাথে সাথে আমাকে তারা সবাই মারপিট শুরু করেন এর বাইরে আর কিছু বলতে পারছেনা আমার ছেলে। ছেলের মুখ থেকে শোনার পর অটো-বাইক বিক্রির কত টাকা বায়না নিয়েছিলো আর সেই টাকা কোথায় জানতে চাইলে ছেলে বলে ২০ হাজার টাকা নিয়েছি পকেটে আছে বলে জানালেও তার পকেটে খুজে বায়নার টাকা সহ ভাড়ার কিছু টাকা ছিলো সে টাকাগুলো ও তার কাছে পাওয়া যায়নি জানিয়ে শ্রীমতি পূর্নীমা রানী কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন এবং বলেন, আমরা খুবই গরীব মানুষ তারা যদি আমার ছেলের কাছে থেকে পাওনা ১৩০ টাকা নিতেই চায় সেই টাকা দিনের বেলা নিতে পারত, আমরা হিন্দু সমাজ রাতে টাকা দেইনা।

এজন্যই পরেদিন সকালে টাকা দিতে চেয়েছিলো আমার ছেলে অথচ তারা আমার ছেলেকে বেদম মারপিট করে ছেলের কাছে থাকা অটো-বাইক বিক্রি বাবদ ২০ হাজার ও ভাড়ার সব টাকাও নিয়েগেছে জানিয়ে তিনি কান্না জড়ীত কন্ঠে ন্যায় বিচার দাবি করে প্রশাসনের আশুদৃষ্টি কামনা করেছেন।

এ ঘটনায় অভিযুক্তদের বক্তব্য নেওয়ার জন্য যোগাযোগের চেষ্টা করেও বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হযনি।

এব্যাপারে মহাদেবপুর থানার ওসি মোঃ নজরুল ইসলাম জুয়েল জানান, মারপিটের ঘটনায় গুরুতর আহত অবস্থায় ঐ ছেলেকে রাতে নওহাটামোড় বাজারে নিয়ে আসলে ডিউটিরত পুলিশ চিকিৎসার জন্য নওগাঁ সদর হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করার পরামর্শ দিয়েছেন বলে জেনেছি, এখনো এব্যাপারে কেউ অভিযোগ করেননি। অভিযোগ পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে বলেও জানিয়েছেন ওসি।


Categories