জ্বালানি তেলের কমিশন বৃদ্ধিসহ ছয় দফা দাবিতে মালিক শ্রমিকদের কর্মবিরতি।

প্রকাশিত: ৭:৪৪ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ১৫, ২০২২
মোঃ মিজানুর রহমান খুলনা প্রতিনিধি।

জ্বালানি তেলের কমিশন বৃদ্ধিসহ ছয় দফা দাবিতে মালিক শ্রমিকদের কর্মবিরতি।

জ্বালানী তেলের উপর কমিশন বৃদ্ধিসহ ৬ দফা দাবিতে খুলনায় ২ ঘন্টা কর্মবিরতি পালন করেছে জ্বালানী তেল সংশ্লিষ্ট মালিক ও শ্রমিকরা। মঙ্গলবার (১৫ ফেব্রুয়ারি) সকালে খুলনার নতুন রাস্তা শ্রমিক ভবনের সামনে পদ্মা, মেঘনা ও যমুনা ডিপো থেকে তেল উত্তোলন বন্ধ রেখে এ কর্মবিরতি পালন করা হয়।

সংগঠনের কেন্দ্রীয় কমিটির ডাকে বৃহস্পতিবার (১৭ ফেব্রুয়ারি) থেকে অনির্দিষ্টকালের জন্য ধর্মঘটের সমর্থনে খুলনায় এ কর্মবিরতি পালন করেন ৪ টি সংগঠনের নেতা-কর্মীরা। বাংলাদেশ তেল পরিবেশক সমিতি, বাংলাদেশ ট্যাংকলরী ওনার্স এসোসিয়েশন, খুলনা বিভাগীয় ট্যাংকলরী শ্রমিক ইউনিয়ন এবং পদ্মা মেঘনা যমুনা ট্যাংকলরী শ্রমিক কল্যান সমিতি এই ৪ টি সংগঠনের আয়োজনে এই কর্মসূচি পালন করা হয়েছে।

কর্মবিরতি পালনকালে অনুষ্ঠিত সভায় সভায় বক্তরা বলেন জ্বালানী তেলের দাম বাড়লেও তেল পরিবহন ও উত্তোলনের সংশ্লিষ্টদের কমিশন বৃদ্ধি করা হয়নি। বিদ্যূৎ জ্বালানী ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রনালয় এবং বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম কর্পোরেশনে (বিপিসি) একাধিকবার চিঠি ও অভিযোগ জানিয়ে নামমাত্র কমিশন বৃদ্ধি সিদ্ধান্ত নেয়া হয় যা মালিক ও শ্রমিকদের কোন কাজে আসবে না।

এ সময় ৬ দফা দাবির মধ্যে তুলে ধরা হয়। দাবির মধ্যে রয়েছে জ্বালানী তেল ব্যবসায়ীরা কমিশন এজেন্ট যা গেজেট আকারে প্রকাশ, ট্যাংকলরি শ্রমিকদের ৫ লক্ষ টাকা দুর্ঘটনা বীমা প্রদান চালু, ট্রেড ও বিস্ফোড়ক লাইসেন্স ব্যতীত অন্য কোন দপ্তর কর্তৃক লাইসেন্স গ্রহণের সিদ্ধান্ত বাতিল, সড়ক ও জনপথ বিভাগ কর্তৃক ফিলিং স্টেশনের প্রবেশদ্বারে ভুমির জন্য ইজারা গ্রহণ প্রথা বাতিল, প্রধানমন্ত্রী ঘোষিত সকল তেল ডিপোতে ট্যাংকলরী শ্রমিকদের বিশ্রামাগার ও শৌচাগার নির্মাণ।

সভায় সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ ট্যাংকলরী ওনার্স এসাসিয়েশনের মহাসচিব শেখ ফরহাদ হোসেন। এ সময় বক্তৃতা করেন তেল পরিবেশক সমিতির খুলনা বিভাগীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক শেখ মুরাদ হোসেন, খুলনা বিভাগীয় ট্যাংকলরী শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি মীর মোকসেদ আলী, সাধারণ সম্পাদক মোঃ আলী আজিম, কোষাধ্যক্ষ মিজানুর রহমান মিজু প্রমুখ।


Categories