করোনা আক্রান্ত অনেকেই কখনোই পুরোপুরি সুস্থ হবেন না’

প্রকাশিত: ৮:২৮ পূর্বাহ্ণ, জুলাই ১৪, ২০২০

ইতালির চিকিৎসক ও গবেষকরা করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) নিয়ে আরো ভয়ের হুঁশিয়ারি দিয়েছেন। তারা বলেছেন, আক্রান্তদের অনেকে হয়তো কখনোই আর পুরোপুরি সুস্থ হবেন না। এ ছাড়া করোনা ভাইরাস সব বয়সীকে আক্রান্ত করতে পারে। পুরো শরীরের জন্য ঘাতক এই ভাইরাস। করোনা সংক্রমণের ফলে রোগীর শরীরে দেখা দিতে পারে মানসিক রোগ, অনিদ্রা, কিডনির জটিলতা, মেরুদণ্ডের সংক্রমণ, জটিল অবসন্নতা ও চলাচলে সমস্যা। কেউ কেউ স্ট্রোকও করতে পারেন। ইতালিতে সবচেয়ে ভয়াবহভাবে করোনায় আক্রান্ত এলাকা লম্বার্দির অনেক রোগীর মধ্যে এসব লক্ষণ দেখা গিয়েছে। এ খবর দিয়েছে স্কাই নিউজ।খবরে বলা হয়, করোনাভাইরাসের ক্ষতি সম্পর্কে আগে যেমনটা ভাবা হয়েছিল, তার চেয়ে বেশি ক্ষতি করতে পারে এই ভাইরাস।

এটা শুধু শ্বাসযন্ত্রের ক্ষতিই করে না, সারা শরীরের জন্য সে ঘাতক। ইতালির উত্তরাঞ্চলের গবেষক ও চিকিৎসকরা এমন হুঁশিয়ারি দিয়েছেন। তারা বলেছেন, করোনাভাইরাস হলো একটি পর্যায়ক্রমিক সংক্রমণ। এটা পুরো দেহের যেকোনো অঙ্গকে আক্রমণ করতে পারে। অনেক মানুষ যথাযথভাবে কাজ করতে পারবেন না। কাজে মন বসাতে পারবেন না। এমনকি শারীরিক কর্মকাণ্ডও মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে।
চিকিৎসকরা আরো সতর্ক করেছেন, যেসব মানুষ নিজেদেরকে ঝুঁকিপূর্ণ বলে মনে করবে না, এই ভাইরাসে সংক্রমিত হওয়ার বিষয়ে সচেতন থাকবে না, তারা নিজেদের জীবনকে অসুস্থতার দিকে ঠেলে দেয়ার ঝুঁকিতে থাকবে। এক্ষেত্রে নিরাপদ থাকার জন্য সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা, হাত ধোয়া এবং মাস্ক পরা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করেন তারা। ইতালিতে দ্বিতীয় দফায় করোনা সংক্রমণ আসন্ন বলে যখন ক্রমেই উদ্বেগ বাড়ছে তখন এই সতর্কতা দিলেন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরা।
লম্বার্দির প্রধান দুটি হাসপাতালের চিকিৎসকরা বলেছেন, তাদের কাছে শ্বাসকষ্ট নিয়ে মারাত্মক অসুস্থ বেশকিছু রোগী গিয়েছেন। বেরগামোতে অবস্থিত তেইশতম পাপা জিওভান্নি হাসপাতালের ইমার্জেন্সি বিভাগের প্রধান ড. রবার্তো কোসেন্টিনি করোনাভাইরাস সংশ্লিষ্ট বিষয় দেখাশোনা করেন। তিনি বলেছেন, ওই অঞ্চলে কমপক্ষে ৬০০০ মানুষ করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন। তিনি এখন বিশ্বজুড়ে জানাতে চান যে, করোনাভাইরাস প্রাণঘাতী। এই ভাইরাস সারা শরীরকে আক্রান্ত করে। এটা সহসা কেটে যাচ্ছে না। তিনি বলেন, প্রথমে আমরা এই ভাইরাসকে একটা ক্ষতিকর ফ্লু হিসেবে বিবেচনা করেছিলাম। তারপর মনে হলো এটা খুব খারাপ নিউমোনিয়া সৃষ্টিকারী একটি বাজে ফ্লু। কিন্তু আমরা দেখতে পাচ্ছি এটা পর্যায়ক্রমিকভাবে অসুস্থ করে তোলে। পুরো শরীরের ক্ষতি করে। মূত্রাশয়, এমনকি মস্তিষ্ককে আক্রান্ত করে। এর ফলে রেনাল ফেইলারের মতো ঘটনা ঘটছে এবং এ জন্য ডায়ালাইসিস অথবা স্ট্রোকের চিকিৎসা করাতে হয়। এ থেকে মায়োকার্ডিয়াল কলা নষ্ট হয়। এ ভাইরাস আরো জটিল সব সমস্যা সৃষ্টি করে।

সূত্র : মানব জমিন


Categories