ঢাকা, ১৮ই অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ২রা কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | ১২ই রবিউল আউয়াল, ১৪৪৩ হিজরি

এমপিওভুক্ত শিক্ষা জাতীয়করণের লক্ষ্যে বৃহত্তর মোর্চা গঠনের ফলপ্রসূ আলোচনা।


প্রকাশিত: ৭:০৮ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ১৩, ২০২১

এমপিওভুক্ত শিক্ষা জাতীয়করণের লক্ষ্যে বৃহত্তর মোর্চা গঠনের ফলপ্রসূ আলোচনা।

অদ্য ১৩ অক্টোবর ২০২১ বুধবার ঢাকা উদ্যান পাবলিক স্কুল অ্যান্ড কলেজে “এমপিওভুক্ত শিক্ষা জাতীয়করণের লক্ষ্যে বৃহত্তর মোর্চা” গঠনের এক ফলপ্রসূ আলোচনা অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।
আলোচনা অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ শিক্ষক ইউনিয়ন এর সম্মানিত সভাপতি ও ঢাকা উদ্যান পাবলিক স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ জনাব আবুল বাশার হাওলাদার।
সভাপতি মহোদয় আলোচনার সূত্রপাত করার পর উপস্থিত বক্তারা বলেন- বাংলাদেশের শিক্ষাব্যবস্থা সরকারি ও বেসরকারি দুই ভাগে বিভক্ত। সরকারি ব্যাবস্থাপনায় ৩ থেকে ৪ শতাংশ শিক্ষাব্যবস্থা আর ৯৬ থেকে ৯৭ শতাংশ বেসরকারি।  বেসরকারি শিক্ষক কর্মচারীগন দেশের প্রায় ৯৭ শতাংশ শিক্ষার দায়িত্ব পালন করার পরও তারা বিভিন্নভাবে বৈষম্যের স্বীকার।
বাংলাদেশ বেসরকারি শিক্ষক কর্মচারী ফোরাম এর সম্মানিত সভাপতি জনাব সাইদুল হাসান সেলিম বলেন- বেসরকারি শিক্ষক কর্মচারীগন দেশের ৯৭ শতাংশ শিক্ষার দায়িত্ব পালন করা সত্ত্বেও তারা মাত্র ১০০০ টাকা বাড়ি ভাড়া ভাতা, ৫০০ টাকা চিকিৎসা ভাতা, মুল বেতনের ২৫% উৎসব ভাতা পান। এছাড়া শিক্ষা ভাতাসহ অন্য কোন ভাতা বা সুযোগ সুবিধা নাই।
বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতির সম্মানিত সভাপতি জনাব নজরুল ইসলাম রনি বলেন- দক্ষ মানবসম্পদ তৈরিতে চাই মানসম্পন্ন শিক্ষা। শিক্ষকদের অভুক্ত রেখে, বৈষম্যের মধ্যে রেখে কখনোই মানসম্পন্ন শিক্ষা আশা করা যায় না।
জনাব রনি বলেন- শিক্ষা ক্ষেত্রে সকল বৈষম্য দূরীকরণের একমাত্র সমাধান হল এমপিওভুক্ত শিক্ষাব্যবস্থা জাতীয়করণ।
উপস্থিত সকল নেতৃবৃন্দ উল্লেখিত আলোচনার সাথে একমত পোষণ করেন, সাথে সাথে বেসরকারি শিক্ষক কর্মচারীদের এক প্লাটফর্মে এসে ঐক্যবদ্ধ কর্মসূচী দেয়ার উপর দাবী উপস্থাপন করেন। এমতাবস্থায় সমমনা শিক্ষক সংগঠনগুলোর নেতৃবৃন্দের সাথে যোগাযোগ করে ঐক্য গঠনের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়।

আলোচনা সভায় উপস্থিত ছিলেন- বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতির সম্মানিত সভাপতি জনাব নজরুল ইসলাম রনি, অতিরিক্ত মহাসচিব জনাব উমর ফারুক, সাংগঠনিক সম্পাদক জনাব আসাদুজ্জামান। বাংলাদেশ বেসরকারি শিক্ষক কর্মচারী ফোরাম এর সম্মানিত সভাপতি জনাব সাইদুল হাসান সেলিম, সিনিয়র সহ সভাপতি জনাব মোদাচ্ছির আলম, যুগ্ম মহাসচিব জনাব মোঃ রেহান উদ্দীন, সাংগঠনিক সম্পাদক জনাব এনামুল ইসলাম মাসুদ, অর্থ সম্পাদক কামরুল হাসান, যুগ্ম সাংগঠনিক সম্পাদক জনাব গোলাম মোহাম্মদ সাদেক। বাংলাদেশ শিক্ষক ইউনিয়ন এর সম্মানিত সভাপতি  জনাব আবুল বাশার হাওলাদার, মহাসচিব জনাব জসিম উদ্দিন সিকদারসহ আরও অনেকে।

আলোচনার জন্য পরবর্তী তারিখ নির্ধারণ করা হয় ২৯ শে অক্টোবর। পরবর্তী সভায় মোর্চার নাম, পরিধি সম্প্রসারণ, সমমনা সংগঠনের সাথে ঐক্য, ঐক্যের নীতিমালা ও কর্মসূচি প্রণয়নসহ বিশদ আলোচনা হবে।

সংগঠন যার যার জাতীয়করণ সবার। একমাত্র ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনই এনে দিবে জাতীয়করণ।