উচ্চতর গ্রেড জটিলতা নিরসন জরুরি

প্রকাশিত: ৩:৪৭ অপরাহ্ণ, জুন ২৮, ২০২০

দীর্ঘ ৫ বছরের অধিক সময় ধরে এমপিওভুক্ত শিক্ষকদের টাইমস্কেল বন্ধ রাখার পর বিগত ৩০মে ২০২০ তারিখে টাইমস্কেল প্রদানের স্পষ্ঠিকরণ আদেশ দেয় অর্থমন্ত্রণালয়। উক্ত চিঠিতে যোগদান থেকে ১০ বছর পূর্তিতে শিক্ষকদের উচ্চতর গ্রেড দেয়ার আদেশ জারি করা হয়।

অর্থ মন্ত্রণালয় থেকে পাঠানো স্পষ্টীকরণ চিঠিতে বলা হয়েছে, ‘কোন শিক্ষক চাকরির ১ম এমপিওভুক্তির তারিখ থেকে অন্য যেকোন উপায়ে পদোন্নতি বা টাইম স্কেল বা উচ্চতর স্কেল, না পেয়ে থাকলে তিনি চাকরির ১০ বছর পূর্তিতে উচ্চতর গ্রেড পাবেন।

বিএড একজন শিক্ষকের যোগ্যতার স্কেল, টাইমস্কেল শিক্ষকদের অভিজ্ঞতার মূল্যায়ন। ইতিপূর্বে এমপিওভুক্ত শিক্ষকদের মধ্যে অনেকে শর্তসাপেক্ষে বিএড সম্পন্ন না করেই শিক্ষকতায় যোগদান করেছেন এবং যোগদানের পর বিধি মোতাবেক বিএড স্কেল অর্জন করেছেন। মাধ্যমিক স্তরে শিক্ষকদের বিএড ডিগ্রী থাকা আবশ্যক। সেক্ষেত্রে বিএড স্কেল অর্জন, উচ্চতর গ্রেড বাঁ টাইমস্কেল এক হতে পারে না। বেসরকারি শিক্ষকদের পদোন্নতির বিধান না থাকায় সরকার শিক্ষকদের অভিজ্ঞতার মূল্যায়ন করে টাইমস্কেল প্রদানের নির্দেশ দেয়। টাইমস্কেল বাঁ উচ্চতর গ্রেড প্রাপ্তির ক্ষেত্রে একই স্কেলে ১০ বছর পূর্তিতে সবাই প্রাপ্য হবেন। অর্থ মন্ত্রণালয়ের পত্রের মর্মাণুসারে এমপিওভুক্ত শিক্ষকরা এতে বৈষম্য ও আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। টাইম স্কেল ও যোগ্যতার স্কেল এর মধ্যে কৌশলগতভাবে জটিলতা সৃষ্টি করা হয়েছে। অনতিবিলম্বে অর্থমন্ত্রনালের প্রেরিত পত্রের সৃষ্ট জটিলতার অবসান হওয়া জরুরি।

মোঃ সাইদুল হাসান সেলিম
সভাপতি
বাংলাদেশ বেসরকারি শিক্ষক কর্মচারী ফোরাম


Categories