আসন্ন টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের জন্য দল ঘোষণা করেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড।

প্রকাশিত: ১:১৮ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ৯, ২০২১

আসন্ন টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের জন্য দল ঘোষণা করেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড।

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের এবারের আসর আগামী ১৭ অক্টোবর থেকে মাঠে গড়াচ্ছে। আসন্ন এই বিশ্ব আসরের জন্য দল ঘোষণা করেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। ১৫ জনের দলে জায়গা না হলেও স্ট্যান্ড বাই থাকছেন অভিজ্ঞ পেসার রুবেল হোসেন।

মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে এক সংবাদ সম্মেলনে বিশ্বকাপ দল ঘোষণা করেন জাতীয় ক্রিকেট দলের প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন। এ সময় অন্য দুই নির্বাচক হাবিবুল বাশার ও আবদুর রাজ্জাক।

আজ ৯ সেপ্টেম্বর ২০২১ বৃহস্পতিবার দুপুরে মিরপুর শের-ই বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে এক সংবাদ সম্মেলনে দল ঘোষণা করে বিসিবির নির্বাচক প্যানেল। আইসিসির নির্ধারিত ১৫ সদস্যের বাইরে আরও তিনজনকে নিজস্ব খরচে নিতে যাচ্ছে বিসিবি। বর্তমান কোভিডের সিচুয়েশনে খেলোয়াড় নিয়ে ঝামেলা এড়াতেই এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছে বোর্ড।

বিশ্বকাপের জন্য ঘোষিত এই দলে ৯ ব্যাটসম্যান, তিন পেসারের পাশাপাশি রয়েছেন তিন অলরাউন্ডার অলরাউন্ডারও। শুধুমাত্র স্পিন অ্যাটাকে রয়েছেন নাসুম আহমেদ। অলরাউন্ডারদের মধ্যে পেস অ্যাটাকে একমাত্র সাইফউদ্দিন। স্পিন অ্যাটাকে আছেন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান ও শেখ মেহেদী হাসান।

জিম্বাবুয়ে সফর থেকেই টি-টোয়েন্টি দলে থাকাদের নিয়েই বিশ্বকাপ স্কোয়াডের তাগিদ দিয়েছিল বিসিবি। এদের বাইরে ছিলেন দুই বছর ধরে টি-টোয়েন্টি না খেলা তামিম ইকবালও। অভিজ্ঞ এই ওপেনারকে নিয়েই স্কোয়াড করতে চেয়েছিল নির্বাচকরা। তবে মাঝ পথে তামিম নিজ থেকে সরে যাওয়ার ঘোষণা দিলে তার জায়গায় অন্য একজনকে আনা হয়। মুশফিক কিপিং ছেড়ে দেওয়ায় সেখানে থাকছেন নুরুল হাসান সোহান।

বাংলাদেশের এই দলে বাড়তি কোনো চমক নেই। দলে প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপে ডাক পাওয়া ক্রিকেটারদের মধ্যে আছেন আফিফ হোসেন, মোহাম্মদ নাঈম, শামীম হোসেন, শরীফুল ইসলাম, মেহেদী হাসান ও নাসুম আহমেদ।

তবে প্রথম বিশ্বকাপ খেলতে যাচ্ছেন শরিফুল ইসলাম, নুরুল হাসান সোহান, শামীম পাটোয়ারি, শেখ মেহেদী হাসান ও আফিফ হোসেন ধ্রুবরা। সবশেষ তিন সিরিজে থাকা ক্রিকেটারদের নিয়েই বিশ্বকাপের স্কোয়াড সাজালো টিম ম্যানেজমেন্ট।

মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের নেতৃত্বে ১৫ সদস্যের মূল দলের পাশাপাশি রিজার্ভে দুজন খেলোয়াড়কে রেখেছে দেশের ক্রিকেটের সর্বোচ্চ নিয়ন্ত্রক সংস্থা।

উল্লেখ্য গত ৬টি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপেই তামিম ইকবাল ছিলেন দলের অন্যতম সদস্য। সবশেষ ২০১৬ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপেও তামিম ছিলেন দলের সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক। অথচ তিনিই কী না আসন্ন বিশ্বকাপের দলে নেই।

নেই বলতে নিজে থেকেই নাম সরিয়ে নিয়েছেন। এর কারণ অবশ্য এক বছর ধরে জাতীয় দলের হয়ে টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটে না খেলা। সব শেষ ম্যাচ খেলা হয়েছিল ২০২০ সালের মার্চে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে। তামিম ফেসবুক পেজে ভিডিও বার্তায় খোলাসা করেন কেন তিনি খেলছেন না।

আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) তিন নির্বাচক মিলে ঘোষণা করেছেন ১৫ সদস্যের বিশ্বকাপ দল। সঙ্গে রয়েছে দুজন অতিরিক্ত খেলোয়াড়ও। তবে প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন নান্নু জানিয়েছেন তামিমের না থাকার অভাববোধের কথা।

“অবশ্যই তামিম ইকবাল তিন ফরম্যাটে আমাদের সেরা খেলোয়াড়দের একজন। ও নিজে থেকে সরিয়ে নিয়েছে, আমরা আত্মবিশ্বাসী ছিলাম বিশ্বকাপে ওর মত খেলোয়াড়কে পাবো। পাইনি এটা আমাদের দুর্ভাগ্য, আমরাও মিস করবো তামিমকে। আমরা আত্মবিশ্বাসী ও আবার ফিরে আসবে।”

তামিমের অনুপস্থিতিতে বাকি ওপেনাররা কতটা সামলে উঠতে পারবে এমন প্রশ্নে নান্নু বলেছেন, “অবশ্যই যারা সুযোগ পেয়েছে এটা বিরাট প্লাটফর্মের মধ্যে আছে। তাদের অবশ্যই সামর্থ্য আছে ভাল খেলার এবং বিশ্বকাপে এই ওপেনারদের ওপর আমরাও যথেষ্ট আত্মবিশ্বাসী যে ওরা ভাল করবে।”

দলের আট সদস্যই খেলবেন প্রথবারের মতো টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ। সাকিব আল হাসান, মুশফিকুর রহিম ও মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ খেলেছেন প্রত্যেকটি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ।

প্রধান নির্বাচক মনে করছেন দলে যারা আছে তারা যদি সামর্থ্য অনুযায়ী খেলে তাহলে ভালো কিছু করা অসম্ভব না।।

“যারা সুযোগ পেয়েছে তারা বিরাট প্ল্যাটফর্মের মধ্যে আছে এবং তাদের সামর্থ্য আছে ভালো করার ইন শা আল্লাহ। বিশ্বকাপ স্কোয়াডে যারা আছে ওপেনার তাদের ব্যাপারে আমরা আত্মবিশ্বাসী তারা ভালো করবে।”

প্রথম রাউন্ডে লাল-সবুজদের প্রতিপক্ষ স্কটল্যান্ড, ওমান ও পাপুয়া নিউগিনি। প্রথম রাউন্ডে সেরা দুই দলের মধ্যে থাকলে সুপার টুয়েলভে জায়গা হবে রাসেল ডোমিঙ্গোর শিষ্যদের।

বাংলাদেশ দল: মাহমুদউল্লাহ (অধিনায়ক), সাকিব আল হাসান, মুশফিকুর রহিম, মোস্তাফিজুর রহমান, লিটন দাস, সৌম্য সরকার, নুরুল হাসান, আফিফ হোসেন, মোহাম্মদ নাঈম, মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন, নাসুম আহমেদ, মেহেদী হাসান, শামীম হোসেন, তাসকিন আহমেদ, শরীফুল ইসলাম।

স্ট্যান্ড বাই : রুবেল হোসেন ও আমিনুল ইসলাম বিপ্লব।


Categories