আজ রাণীনগর হানাদার মুক্ত দিবস

প্রকাশিত: ১১:৪০ পূর্বাহ্ণ, ডিসেম্বর ১০, ২০২১

মামুনুর রশীদ, রাণীনগর (নওগাঁ) প্রতিনিধি: আজ (১০ ডিসেম্বর) নওগাঁর রাণীনগর উপজেলা হানাদার মুক্ত দিবস। ১৯৭১ সালের এই দিনটি রাণীনগর উপজেলাবাসীর জন্য একটি স্মরনীয় দিন। আজকের এই দিনে নওগাঁর রাণীনগর উপজেলায় ৩৭ ঘন্টা সম্মুখ যুদ্ধের মাধ্যমে হানাদার মুক্ত হয়।

স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধারা জানিয়েছেন, স্বাধীনতার সংগ্রামে সাড়া দিয়ে সারাদেশের মতো এই উপজেলার মুক্তিযোদ্ধারা মাতৃভূমিকে শত্রু মুক্ত করার লড়াইয়ে ঝাঁপিয়ে পড়েন। মহান স্বাধীনতা সংগ্রামের ৯ মাস রক্তক্ষয়ী লড়াইয়ের পর নওগাঁর রাণীনগর উপজেলাবাসী আজকের এ দিনে শত্রু মুক্ত হয়ে বিজয় উল্লাস আর জয়ধ্বনিতে প্রকম্পিত করে তুলেছিল রাণীনগর উপজেলার আকাশ-বাতাস।

স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধারা জানান, ১৯৭১ সালের ২৪ এপ্রিল রাণীনগরে পাক বাহিনীরা অনুপ্রবেশ করে। এ সময় তারা নিরাপদ স্থান হিসেবে সদরে আহম্মদ আলীর বাসা, থানা ভবন ও পাইলট স্কুলসহ কয়েক জায়গায় ক্যাম্প স্থাপন করে। তৎকালীন সময়ে স্থানীয় কিছু রাজাকার, আলবদর ও তাদের দোসরদেরকে নিয়ে আতাইকুলা পালপাড়া, হরিপুর, স্থল-বড়বরিয়া গ্রামে গণহত্যা, নারী নির্যাতন, অগ্নি সংযোগ ও লুটপাটে মেতে উঠে। তারা আহম্মদ আলীর বাসায় বন্দী শিবির ও নির্যাতন কেন্দ্র বানিয়ে বহু নর-নারীকে পাশবিক নির্যাতন চালায়। ১৯৭১ সালের ৯ই ডিসেম্বর সকাল ৯টায় রাণীনগর পাক হানাদার মুক্ত করার লক্ষ্যে মুক্তিযোদ্ধারা থানা সদরে থাকা হানাদার ক্যাম্প চারিদিক থেকে ঘেরাও করেন। মুক্তিযোদ্ধা ও পাক হানাদার বাহিনীর মধ্যে ৩৭ ঘন্টা ব্যাপী তুমূল গোলা-গুলির শব্দে আকাশ-বাতাস ভারী হয়ে উঠে। ১০ ডিসেম্বর রাত আনুমানিক ১০ টায় মুক্তিযোদ্ধাদের আক্রমণে পাক-হানাদার বাহিনী ও তার দোসররা পালাতে শুরু করে। দীর্ঘ ৩৭ ঘন্টা সম্মুখ যুদ্ধে অবতীর্ন হয়ে শেষের দিকে উভয় পক্ষের গোলাগুলির এক পর্যায়ে ৪০ জন রাজাকার-আলবদর অস্ত্রসহ মুক্তিযোদ্ধাদের কাছে আত্মসমর্পন করে এবং রাণীনগর উপজেলা হানাদার মুক্ত হয়।

যুদ্ধে অংশ নেওয়া মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রউফ দুলুর সাথে কথা হয়। তিনি জানান, বীরমুক্তিযোদ্ধা আকতারুজ্জামান রনজু ও হারুন অর রশিদের নেতৃত্বে এই সম্মুখ যুদ্ধে স্থানীয়দের মধ্যে আমিসহ, আব্দুর রাজ্জাক, সোলাইমান আলী, নুরুল ইসলাম, আব্দুল হাই ঠান্ডুসহ ৪০-৪৫ জন মুক্তিযোদ্ধা অংশ নেন। তিনি আরও জানান, এছাড়া এই যুদ্ধে বিভিন্ন দিক থেকে এসে আরো কয়েকটি মুক্তিযোদ্ধাদের গ্রুপ আমাদের সাথে যুদ্ধে অংশ নেয়।

এই সম্মুখ যুদ্ধে রাণীনগর পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী লুৎফর রহমান পাক-হানাদার বাহিনীর গুলিতে শহীদ হন। সেই সাথে দীর্ঘ ৩৭ ঘন্টা লড়াইয়ের মধ্য দিয়ে ১০ ডিসেম্বর রাণীনগর উপজেলাকে হানাদার মুক্ত করেন স্বাধীনতা যুদ্ধের সেই মুক্তিযোদ্ধা নায়ক সেনারা।


Categories