অনুপাত প্রথা বাতিলের দাবীতে পদোন্নতি বঞ্চিত প্রভাষকদের ভার্চুয়াল সভা

প্রকাশিত: ১১:৪৪ অপরাহ্ণ, জুলাই ২৭, ২০২০

 

এমপিওভুক্ত বেসরকারী কলেজ,মাদ্রাসা ও কারিগরী কলেজের প্রভাষকদের বৈষম্য সৃষ্টিকারী অনুপাত প্রথা বিলুপ্তির দাবীতে জনাব জ্যোতিষ মজুমদারের সভাপতিত্বে ও জহিরুল ইসলামের সঞ্চালনায় ২৭ জুলাই  সোমবার সন্ধায় এক  ভার্চুয়াল সভা অনুষ্টিত হয়। সভায় দেশের বিভিন্ন  কলেজ,মাদ্রাসা ও কারিগরী কলেজের প্রভাষকরা অংশ নেন। তাদের মধ্য থেকে বক্তব্য রাখেন জি এম শাওন,এম এ মতিন,  আব্দুল হালিম, মো. রাফি উদ্দিন শামীম,রতন কুমার সরকার, অসীম চক্রবর্তী, সগীর হোসেন , মানজুরুল করীম, জালাল উদ্দিন ,শহীদুল ইসলাম,জাহিদুল ইসলাম,  আশরাফুল লতিফ তুহিন, রুহুল আমীন প্রমুখ  ।

বক্তারা বলেন, বেসরকারি প্রভাষকদের সারা জীবনে একটিমাত্র পদোন্নতি তা ও  অনুপাত (৫ঃ২) নামক কালো আইনের দ্বারা সংকোচিত করা হয়েছে। অনুপাত প্রথার ফলে  প্রায় ৭৩ শতাংশ  প্রভাষক  একই  পদে থেকে অবসর গ্রহণ করেন।  এটা  একজন  কলেজ শিক্ষকের জন্য অত্যন্ত লজ্জার যে একজন বয়োবৃদ্ধ  প্রভাষক অবসরের সময় ও প্রভাষক অথচ  তারই ছাত্র কিংবা ছেলেমেয়ে  অন্য কোন প্রতিষ্ঠানে চাকরী নিয়ে  সহকারী অধ্যাপক পদে পদোন্নতি পেয়ে যায়। অনেক ছাত্র  সরকারি কলেজ বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক হয়ে যায়। এতে করে একজন প্রভাষকের সামাজিক  মর্যাদা খর্ব হয় ।

নেতৃবৃন্দ বলেন, মাননীয় প্রধান মন্ত্রী ঘোষিত ৫% প্রবৃদ্ধি বাস্তবায়নের ফলে একজন প্রভাষকের মূলবেতন ১০ বছরে সহকারী অধ্যাপকের গ্রেড ৬ষ্ঠ গ্রেডকে অতিক্রম করে । এতে করে একজন প্রভাষককে সহকারী অধ্যাপক পদে পদোন্নতি দিলে সরকারের অতিরিক্ত আর্থিক ব্যায় হবে না পক্ষান্তরে প্রভাষকদের সামাজিক মর্য়দা বৃদ্ধি পাবে । সভায় এমপিও নীতিমালা পরিবর্তন করে অভিজ্ঞতার ভিত্তিতে সকলকে সহকারী অধ্যাপক পদে পদোন্নতির দাবী জানানো হয়।

সভা থেকে সরকারের নিকট নিম্নোক্ত দাবী সমূহ পেশ করা হয়। ১. অনুপাত প্রথা বাতিল করে অভিজ্ঞতার ভিত্তিতে সকল প্রভাষককে সহকারী অধ্যাপক পদে পদায়ন। ক্রমান্বয়ে সহযোগী অধ্যাপক ও অধ্যাপক পদ সৃজন।  ২.প্রভাষকদের উচ্চতর গ্রেড হিসেবে পূর্বের নিয়মে নবম গ্রেড থেকে সরাসরি সপ্তম গ্রেডে পদায়ন।   ৩. পূর্বের ন্যায় ১২ /১৫ বছরের অভিজ্ঞতায় অধ্যক্ষ/উপাধ্যক্ষ পদে সকলকে আবেদনের সুযোগ প্রদান ।

ঈদ পরবর্তীতে এ দাবী সমুহ নিয়ে মাননীয় শিক্ষামন্ত্রী ও শিক্ষা উপমন্ত্রী এর সাখে সাক্ষাত করে বিস্তারিত আলোচনা করার  সিদ্ধান্ত হয় এবং এ লক্ষ্যে  ৭ সদস্যের  কমিটি গঠন করা হয় ।


Categories